লাশ দুটি ফেরত পেতে সরকারের কাছে আকতি নিহত দুই পরিবারের

কসবা প্রতিনিধি কসবার দুই শ্রমিক লিবিয়ায় কর্মরত থেকে নৌকা যুগে অবৈধভাবে ইতালি যাওয়ার পথে লিবিয়ার উপকূলের কাছে ভূমধ্যসাগরে হিটস্ট্রোকে মারা গেছেন বলে জানিয়েছেন বেঁচে যাওয়া সংগীয় জিয়াউর রহমান । নিহত দুই পরিবারে চলছে শোকের মাতম। লাশ দুটি ফেরত পাওয়ার জন্য সরকারের কাছে আকতি জানিয়েছেন নিহত দুই পরিবারের সদস্যরা। নিহত দুই শ্রমিক হলেন; ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার খাড়েরা ইউনিয়নের সোনারগাঁও গ্রামের ফজর আলীর ছেলে নাজমুল হাসান (২৬) ও একই গ্রামের মন মিয়ার ছেলে আমিন ভূইয়া (২৫)। নিহতের দুই পবিার সূত্রে জানা গেছে; নাজমুল হাসান ও আমির হোসেন একই বাড়ির বাসিন্দা। সাড়ে তিন বছর আগে দু‘জনই লিবিয়ায় গেছেন। সেখানে একটি কোম্পানীতে চাকুরী করতেন। লিবিয়ায় একটি দালাল চক্র তাদেরকে নৌকা যুগে ইতালিতে যাওয়ার প্রলোভন দেয়। তারা এতে রাজী হয়। গত বুধবার (২৬ আগস্ট) ভোর চারটায় দালাল চক্র ৮০জন যাত্রী নিয়ে ইতালি যাওয়ার কথা থাকলেও চক্রটি টাকার লোভে চারশ অভিবাসী নিয়ে ইতালীতে রওয়ানা করেন। লিবিয়ার উপকূলের কাছে ভূমধ্যসাগরে হিটস্ট্রোকে আমির হোসেন ও নামজমুল হাসান মারা গেছেন। গত শুক্রবার রাতে আমিন ভূইয়া ও জামিল হাসানের সাথে ইতালির উদ্দেশ্যে যাওয়া বেঁচে থাকা কসবা উপজেলার বাদৈর ইউনিযনের মান্দারপুর গ্রামের মোখলেছ মিয়ার ছেলে জিয়াউর রহমান ইতালি পৌছে নিহতের বাবা মন মিয়া ও ফজর আলীকে জানিয়েছেন আমিন ভূইয়া ও নাজমুল হাসান হিটস্ট্রোকে নৌকায় মারা গেছেন। মন মিয়া বলেন; জিয়াউর রহমান তাদেরকে জানিয়েছেন; লিবিয়ার মানব পাচারকারী দালাল ৮০ জনের জায়গায় চারশ জন যাত্রী তুলেছেন। এতে প্রচন্ড গরমে হিটস্ট্রোকে আমিন ও জামিল মারা গেছেন। তারা লাশ দুটি নৌকায় রেখেই ইতালিতে চলে গেছেন। তিনি বলেন; তার চাচাত ভাই লিবিয়া প্রবাসী বাসু মিয়াও তাদের মৃত্যুর খবর বলেছেন। গতকাল সোমবার সোনাগাওঁ গ্রামে নিহতের বাড়িতে গিয়ে দেখা গেছে শোকের মাতম। পুত্র শোকে জামিলা খাতুন ও নার্গিস বেগম নির্বাক হয়ে গেছেন। পুত্র শোকে বার বার মুর্ছা যাচ্ছেন। আমিন ভূইয়া মা জামিলা খাতুন বলেন; বুধবার ভোর চারটায় তাকে ফোন করে বলেছিল ‘মা দোয়া করো নৌকা এসে গেছে, এখনই আমরা ইতালীর উদ্দেশ্যে নৌকায় উঠব’ এটাই ছেলের সাথে মায়ের শেষ কথা হয়। তিনি কাধঁতে কাধঁতে সরকারের কাছে আকুতি জানায় তার ছেলের লাশটি যেন একনজন দেখার ব্যবস্থা করে দেন। একই কথা বলেছেন; নিহত নাজমুল হাসানের মা নার্গিস বেগম। তিনি বলেন; ছেলেকে দেখিনা সাড়ে বছর হয়ে গেল। কিন্তু ছেলে চির বিদায় নিয়ে চলে যাবে তা কখনো কল্পনাও করিনি।

"/>
Fatal error: Uncaught Error: Call to undefined function get_youtube_thumb() in /home/designgh/domains/amaderkatha.com/public_html/wp-content/themes/amaderkatha/functions.php:41 Stack trace: #0 /home/designgh/domains/amaderkatha.com/public_html/wp-includes/class-wp-hook.php(287): og_meta_tags('') #1 /home/designgh/domains/amaderkatha.com/public_html/wp-includes/class-wp-hook.php(311): WP_Hook->apply_filters(NULL, Array) #2 /home/designgh/domains/amaderkatha.com/public_html/wp-includes/plugin.php(478): WP_Hook->do_action(Array) #3 /home/designgh/domains/amaderkatha.com/public_html/wp-includes/general-template.php(3009): do_action('wp_head') #4 /home/designgh/domains/amaderkatha.com/public_html/wp-content/themes/amaderkatha/header.php(7): wp_head() #5 /home/designgh/domains/amaderkatha.com/public_html/wp-includes/template.php(730): require_once('/home/designgh/...') #6 /home/designgh/domains/amaderkatha.com/public_html/wp-includes/template.php(676): load_template('/home/designgh/...', true, Array) #7 /home/designgh/domains/a in /home/designgh/domains/amaderkatha.com/public_html/wp-content/themes/amaderkatha/functions.php on line 41