আমাদের কথা ডেস্ক :
সবজি আবাদের ভাসমান পদ্ধতি জনপ্রিয় হচ্ছে কিশোরগঞ্জের কাশোরারচর বিলে। এরইমধ্যে এই চাষে আগ্রহী হয়েছেন আশপাশের গ্রামের কৃষকরাও। কেউ কেউ আরেক ধাপ এগিয়ে এই পদ্ধতিকে বলছেন সবজি বিপ্লব। এক সময় যে জলাশয়ে ছিল কচুরিপানা ও মশা-মাছিদের দখলে, সেখানেই এখন আবাদ হচ্ছে বিষমুক্ত সবজি। ২০১৩ সালে কাশোরারচরের কয়েকজন কৃষক মিলে কচুরিপানা দিয়ে ১৫টি বেড বানিয়ে শুরু করেন সবজি চাষ। এখন ৬০টি বেডে চাষ হচ্ছে মুলা, পাট শাক, ডাটা, ঢেড়ষ, পালং শাকসহ প্রায় সব ধরনের দেশি সবজি। এতে আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন গ্রামের অন্তত ৫০ জন কৃষক।
কৃষকরা বলেন, সবজি চাষ করার জন্য বেড বানাতে আমাদের অনেক কষ্ট হয়েছে। কিন্তু এখান থেকে সবজি বিক্রি করে আমরা যে টাকা পাই সেটা পেয়ে আমরা খুব খুশি। কারণ এখানে সবজি চাষ করতে ওষুধ, সার কিছুই লাগে না। তাই আমাদের এগুলো চাষ করতে খুব ভালো লাগে। মাঝে মাঝে আমরাও অবাক হয়ে যাই যে আমরা এটা কি বানিয়েছি। কৃষকরা আরও জানান, সবজি চাষের ফলে বিলে মাছ বেড়েছে। আর পুরনো বেডগুলোকে ব্যবহার করা যাচ্ছে জৈব সার হিসাবে।
এই পদ্ধতিতে সবজির আবাদ অন্যান্য ইউনিয়নেও ছড়িয়ে দেয়া হবে বলে জানান কিশোরগঞ্জ সদর কৃষি কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম। তিনি বলেন, আমরা এটাকে সব উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে ছড়িয়ে দিব। কারণ আমাদের অনেক জায়গা আছে যেখানে আমরা এ কাজটা করতে পারি। একাত্তর টিভি