আমাদের কথা ডেস্ক :

কোরবানির পশুর কাঁচা লবণযুক্ত চামড়ার দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। ঢাকায় প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়ার দাম ৫০-৫৫ টাকা এবং ঢাকার বাইরে ৪০-৪৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়া খাসির চামড়া প্রতি বর্গফুট ২২-২৫ টাকা এবং বকরির ১৫-১৭ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। বুধবার ধানমন্ডির একটি রেস্টুরেন্টে বাংলাদেশ ফিনিশড লেদার অ্যান্ড ফুটওয়ার এক্সপোর্ট অ্যাসোসিয়েশনের (বিএফএলএলএফইএ) এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাম ঘোষণা করেন সংগঠনের সভাপতি আবু তাহের। সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ প্রস্তুত চামড়া, চামড়া পণ্য ও জুতা রপ্তানিকারক সমিতি (বিএফএলএলএফইএ) ছাড়াও বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিটিএ) ও বাংলাদেশ হাইড অ্যান্ড স্কিন মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশন নেতারা উপস্থিত ছিলেন। তিনটি সংগঠনই মালিক ও  কাঁচা চামড়ার আড়তদারদের সংগঠন। সংগঠন তিনটি প্রতি বছর বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের পরামর্শে কোরবানির আগে চামড়ার দাম নির্ধারণ করে দেয়। এসময় সংগঠনটির সভাপতি আবু তাহের বলেন, আমাদের ফরেন মার্কেটে চামড়ার দাম কম, তাই লোকাল মার্কেটেও দাম কম হবে।  তিনি আরও বলেন, এবার বাইরের মার্কেটে বাংলাদেশের চামড়ার চাহিদা কমে যাওয়ায় এর চেয়ে বেশি দাম দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। এমনিতে আমরা অনেক লোকশানে আছি। ট্যানারি মালিকরা জানিয়েছেন, কোরবানির ঈদে দেশের চামড়ার চাহিদার ৪৮ শতাংশ সংগ্রহ করা হয়। গেল বছর প্রায় ৭৫ লাখ চামড়া সংগ্রহ করা হয়েছিল। গত বছর কোরবানিতে ৭০-৭৫ লাখ চামড়া সংগ্রহ হয়েছিল বলে জানিয়েছেন ট্যানারির মালিকেরা। গতবার ঢাকার বাইরে এ দাম ছিল ৭০-৭৫ এবং বাইরে ৬০-৬৫ টাকা। এছাড়া প্রতি বর্গফুট খাসির লবণযুক্ত চামড়ার দাম ছিল ৩০ থেকে ৩৫ টাকা এবং বকরির চামড়ার দাম ছিল ২৫ থেকে ৩০ টাকা।