স্টাফ রিপোর্টার :
কসবা উপজেলার বাদৈর ইউনিয়নের হাতুড়াবাড়ি গ্রামে প্রতিপক্ষের ইটের আঘাতে আবুল কাশেম (৫০) নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। পুলিশ মামলার এজাহারভুক্ত আসামী একই গ্রামের পরচান মিয়ার ছেলে বড় মিয়া (৩৫)কে গ্রেফতার করে বিচারিক আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠিয়েছে ।
নিহতের লাশ ময়না তদন্ত শেষে গত শুক্রবার দাফন করা হয়েছে। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী রুবি আক্তার বাদী হয়ে ফারুক মিয়াকে প্রধান আসামী করে ২৪ জনের বিরুদ্ধে কসবা থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছে। নিহত আবুল কাশেম উপজেলার বাদৈর ইউনিয়নের হাতড়াবাড়ি গ্রামের মৃত আলফু মিয়ার ছেলে।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে; আবুল কাশেম তাঁর বাড়িতে পাকা ঘর নির্মাণের জন্য গত বুধবার (২৩ সেপ্টেম্বর) বিকালে গ্রামের খাল দিয়ে নৌকার মাধ্যমে ইট নিয়ে বাড়িতে রওয়ানা করেন। ওই খালে খড় জাল বসিয়ে মাছ ধরেন একই গ্রামের ফারুক মিয়া। ইটের নৌকা নিয়ে যাওয়ার সময় জালের একটি বাশ ভেঙ্গে যায়। এ নিয়ে ফারুক মিয়ার সাথে আবুল কাশেমের কথা কাটাকাটি হয়। ওই দিন সন্ধ্যায় গ্রামের একটি দোকানের সামনে কাশেম মিয়া এলে ফারুক মিয়ার লোকজন তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। এক পর্যায়ে ফারুক মিয়ার লোকজন উত্তেজিত হয়ে ইট দিয়ে আবুল কাশেমের মাথায় আঘাত করলে আবুল কাশেম গুরুতর আহত হন। তাকে সংজ্ঞাহীন অবস্থায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। তার অবস্থার অবনতি হলে কর্তৃব্যরত চিকিৎসকের পরামর্শে তাকে ঢাকা নিয়ে যাওয়ার পথে নরসিংদী পৌছলে গত বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সকালে তিনি মারা যান।
কসবা থানা অফিসার ইনচার্জ মো. মহিউদ্দিন জানান, তাৎক্ষণিকভাবে মামলার এজাহারভুক্ত আসামী বড় মিয়াকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতার করার জোর প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।