স্টাফ রিপোর্টার : প্রধান মন্ত্রীর সাবেক একান্ত সচিব, বিশিষ্ট লেখক, মুক্তিযোদ্ধা, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কার্য নির্বাহী কমিটির সদস্য, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি র.আ.ম. উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এম.পি বলেছেন, আমরা এমডিজির ৮টি ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জন করেছি, এখন এসডিজিতে এগিয়ে যাচ্ছি। ২০২১ সালের মধ্যে আমরা মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হতে চাই। তিনি ০১ অক্টোবর বৃহস্পতিবার বিকেলে সদর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে বিভিন্ন সেক্টরে অর্জিত সফলতা ও উন্নয়ন ভাবনা এবং ভিশন ২০২১ এর লক্ষ ও অর্জন বিষয়ে অবহিতকরণ এবং উন্নয়ন কার্যক্রমে জনসম্পৃৃক্ততা বিষয়ে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন।
ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক লুৎফুন নাহারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মোকতাদির চৌধুরী এম.পি আরো বলেন, দেশে ডিজিলাইটেশন হয়েছে এ কথা কি এখন মুখে বলতে হবে। ১৬ কোটি জনসংখ্যার দেশে এখন ১১ কোটি মানুষ মোবাইল ফোন ব্যবহার করেন। ঘরে বসে পরীক্ষার ফলাফল জানা যায়, ঘরে বসেই বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি ফরম পূরন করা যায়। স্কাইপিতে বিদেশে অবস্থানরত আত্মীয় স্বজনের সাথে কথা বলা যায়।
তিনি বলেন, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, অবকাঠামো, সামাজিক নিরাপত্তাসহ সকল বিষয়ে আমাদের উন্নয়ন হয়েছে। দেড় কোটি নতুন বিদ্যুতের সংযোগ দেওয়ার সত্বেও বিদ্যুতের অবস্থা স্বাভাবিক রয়েছে। স্বাধীনতার পরবর্তী সময়ে যখন আমাদের দেশের জনসংখ্যা সাড়ে ৭ কোটি ছিল তখন আমাদের দেশে খাদ্য ঘাটতি ছিল কিন্তু আজ আমাদের দেশের জনসংখ্যা ১৬ কোটি হলেও দেশে খাদ্য ঘাটতি নেই। দেশ এখন খাদ্যে সয়ম্ভরতা অর্জন করেছে। দেশে খাদ্য শস্য উদ্বৃত্ত আছে।
তিনি বলেন, বিদ্যুতায়ন হচ্ছে উন্নয়ন। বিদ্যুত যেখানে পৌছেছে সেখানেই উন্নয়ন হচ্ছে। আমরা ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌছে দিতে কাজ করছি। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী ২০৪১ সালের যে লক্ষ্যমাত্রার ধার্য্য করেছেন আমরা সেই লক্ষ্যমাত্রা পূরনে এগিয়ে যাচ্ছি। তিনি বলেন, জনপ্রতিনিধি, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং জনগন একসাথে কাজ করলে দেশ এগিয়ে যাবে। তিনি বলেন, শিক্ষার ক্ষেত্রে দেশে মেয়েরা এগিয়ে যাচ্ছে। নারীর ক্ষমতায়ন হয়েছে। তিনি উন্নয়নের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সকলকে কাজ করার আহবান জানান।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন পৌর মেয়র মোঃ হেলাল উদ্দিন, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ডঃ আশরাফুল আলম, সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান হাজী মোঃ মহসিন মিয়া, অ্যাডভোকেট তাসলিমা সুলতানা খানম নিশাত ও কসবা উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপিকা বিলকিছ বেগম।
স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেলা তথ্য অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) দীপক চন্দ্র দাস। বক্তব্য রাখেন জেলা শিক্ষা অফিসার কাজী সলিমউল্লাহ, ডাঃ মোঃ শওকত হোসেন, সদর উপজেলা কৃষি অফিসার কে.এম. বদরুল হক।