পাবনা : পাবনার চাটমোহরে আছিয়া খাতুন নামে ছয় মাস বয়সী এক কন্যা শিশুকে তার পিতা হত্যা করেছে বলে অভিযোগ করেছেন শিশুটির মা শিরিন আক্তার।

রবিবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে উপজেলার ফৈলজানা ইউনিয়নের ঝবঝবিয়া গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর পুলিশ শিশুটির লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছে ও পিতা হযরত আলীকে (৪৫) গ্রেফতার করেছে। হযরত আলী ঝবঝবিয়া গ্রামের ময়েজ উদ্দিনের ছেলে।

শিশুটির মা শিরিনি আক্তার অভিযোগ করেন, ভোরে সুস্থ মেয়েকে ঘরে রেখে ধান সিদ্ধ করা জন্য উঠানে যান। কিছুক্ষণ পর ঘরে গিয়ে দেখেন তার মেয়ের নাক-মুখ দিয়ে ফেনা বের হয়ে মৃত অবস্থায় পড়ে আছে। এ সময় তার স্বামী শিশুটির পাশে শুয়ে ছিল। আছিয়াকে তার বাবা হযরত আলী হত্যা করেছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

এলাকাবাসী ও স্থানীয় সূত্র জানা গেছে, পেশায় কৃষক হযরত আলীর চতুর্থ স্ত্রী শিরিন আক্তার। এর আগে হযরতের প্রথম স্ত্রী মারা যান এবং পরের দু’জনকে তালাক দিয়ে দেড় বছর পূর্বে  শিরিন আক্তারকে বিয়ে করেন তিনি। সবপক্ষ মিলিয়ে এক ছেলে ও আছিয়াসহ তিন কন্যা সন্তানের জনক হযরত আলী। আগের পক্ষের দু’টি মেয়ে ও শিরিন আক্তারের আবারও কন্যা সন্তান ভূমিষ্ট হওয়ার পর থেকেই স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া বিবাদ লেগেই থাকতো।

চাটমোহর থানার ওসি (তদন্ত) মো. শরিফুল ইসলাম জানান,  লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। লাশের গায়ে কোন আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। তবে শিশুটির মায়ের অভিযোগের ভিত্তিতে পিতা হযরত আলীকে ৫৪ ধারায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে পাবনা জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

এ ঘটনায় থানায় অপমৃত্যু (ইউডি) মামলা হয়েছে। লাশের ময়নাতদন্ত রিপোর্ট হাতে পেলে মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে বলে জানান তিনি।