সরকার ও প্রশাসনে সিলেটের অবস্থান দিন দিন সুদৃঢ় হচ্ছে জানিয়ে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা বলেছেন, ‘একটা সময় সিলেটে অনেক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা ছিল, মাঝখানে পথ হারিয়ে ছিল বিভাগটি। এখন আবার এ এলাকায় অনেক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা রয়েছেন।’ তিনি বলেন, ‘এখন মানুষ গোপালগঞ্জ ও কিশোরগঞ্জের পাশাপাশি সিলেটকেও স্থান দেয়।’

এ সময় তিনি সিলেটের উন্নয়নে এই অঞ্চলের যারা বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে আছেন তাদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। তিনি নিজেও সিলেটের জন্য কাজ করবেন বলে জানান।

সোমবার রাজধানীর অফিসার্স ক্লাবে সিলেট বিভাগীয় চাকরিজীবী পরিষদের আয়োজনে এক ইফতার মাহফিলে তিনি এসব কথা বলেন।

ক্ষতিগ্রস্ত হাওরবাসীর পাশে সবাইকে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়ে প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘সিলেটে অনেক প্রবাসী, উচ্চ পর্যায়ের সরকারি কর্মকর্তা, শিল্পপতি রয়েছেন। তাদের সবাইকে আমি বলবো এ মুহূর্তে ক্ষতিগ্রস্ত হাওরবাসীকে সাহায্য করুন।’

এসকে সিনহা বলেন, ‘রাজধানী ঢাকায় উন্নয়নের কমতি নেই। ঢাকার পরে আমার সিলেটকে উন্নত করার চেষ্টা করবো। যে পরিমাণ টাকা আমরা ব্যাংকে ডিপোজিট করি, কৃষি, শিল্প ক্ষেত্রে সে পরিমাণ লোন আমাদের দেয়া হচ্ছে না।’ তিনি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের প্রতি আহ্বান জানান সিলেটের ক্ষুদ্র শিল্প, কৃষিসহ অন্যান্য খাতে বেশি করে লোন দেন।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত কয়েকজন এমপি ও এক প্রতিমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘হাকালুকি হাওরকে হাওর ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্টের আওতায় নেয়া হয়নি, আশা করি আপনারা এ হাওরটিকে উন্নয়ন প্রজেক্টের ভেতরে নিয়ে আসবেন।’

ইফতার মাহফিলে আরও উপস্থিতি ছিলেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি, সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের স্ত্রী জয়া সেনগুপ্ত এমপি, মহিবুর রহমান মানিক এমপি, বাংলাদেশ কর্ম কমিশনের (পিএসসি) চেয়ারম্যান ড. মো. সাদিক, এনবিআর এর সিনিয়র সচিব. মো. নজিবুর রহমান, নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব অশোক কুমার মাধব।