আসন্ন ২০১৭-১৮ অর্থবছর থেকেই মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য দুই ঈদে উৎসব ভাতা চালু করতে যাচ্ছে সরকার। মাসিক ভাতার সমপরিমাণ অর্থাৎ ১০ হাজার টাকা করে মুক্তিযোদ্ধাদের এই উৎসব ভাতা দেওয়া হবে।

এ ছাড়া আরও ২০ হাজার মুক্তিযোদ্ধাকে এ বছর থেকে ভাতার আওতায় আনা হচ্ছে।

এজন্য আগামী বাজেটে বিশেষ বরাদ্দের জন্য মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে অর্থ মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। জানতে চাইলে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক সমকালকে বলেন, ‘এবারের ঈদুল ফিতর থেকেই মুক্তিযোদ্ধারা যাতে ঈদ উৎসব ভাতা পান, সে জন্য মন্ত্রণালয় সর্বাত্মক চেষ্টা করছে।’

মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, চলতি অর্থবছরের (২০১৭-১৮) জাতীয় বাজেটে মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য দুটি উৎসব ভাতা চালুর জন্য চারশ’ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশেই এ উৎসব ভাতা চালু করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক সমকালকে বলেন, ‘উৎসব ভাতা চালুর জন্য মুক্তিযোদ্ধারা দাবি জানিয়েছিলেন। বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর কাছে উপস্থাপন করা হলে তিনি মুক্তিযোদ্ধাদের নিরাশ করেননি। তিনি তাৎক্ষণিক অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছেন। আলাপ-আলোচনার পর দুটি উৎসব ভাতার জন্য যে অর্থ প্রয়োজন, তা দেওয়ার কথা জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। চলতি অর্থবছরের বাজেটেই এ বরাদ্দ পাওয়ার আশা করা হচ্ছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধাদের বিষয়ে মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দানকারী আওয়ামী লীগ সরকার সব সময় আন্তরিক। এর আগে এই সরকারই মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানী ভাতা ৫০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে পাঁচ হাজার টাকা করেছিল। পরে সেই ভাতাও দ্বিগুণ করা হয়েছে।’

মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে এক লাখ ৮০ হাজার ৯৯৬ মুক্তিযোদ্ধা মাসিক সম্মানী ভাতা পাচ্ছেন। তবে আসন্ন অর্থবছরে দুই লাখ মুক্তিযোদ্ধাকে ভাতার আওতায় আনার প্রস্তাব করা হয়েছে।