নারায়ণগঞ্জের মেঘনাঘাটে ৭৫০ মেগাওয়াট গ্যাসচালিত বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে ভারতের শীর্ষস্থানীয় শিল্পগোষ্ঠী রিলায়েন্স গ্রুপের প্রস্তাবে চূড়ান্ত সায় দিয়েছে সরকার।
আজ বুধবার সচিবালয়ে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভায় বিদ্যুৎ বিভাগের এ সংক্রান্ত একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়।
এই অনুমোদনের ফলে ফলে মেঘনাঘাটে ৭৫০ মেগাওয়াটের কেন্দ্র স্থাপন করার সুযোগ পাবে রিলায়েন্স গ্রুপ।

রিলায়েন্স অবশ্য পর্যায়ক্রমে দেশে তিন হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুতকেন্দ্র স্থাপনের প্রস্তাব দিয়েছে। এর মধ্যে প্রাথমিকভাবে এ বিদ্যুৎকেন্দ্রে নির্মাণের অনুমোদন দেয়া হলো।
সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে এটিসহ ১৩৭৬ কোটি টাকা ব্যয়ে মোট ১০টি ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে।
অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সভাপতিত্বে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে এসব প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়।
বৈঠকে কমিটির সদস্য, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সিনিয়র সচিবসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিবরা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ অতিরিক্ত সচিব মাকসুদুর রহমান পাটোয়ারি অনুমোদিত ক্রয় প্রস্তাবগুলোর বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন।
এসময় তিনি বলেন, মেঘনাঘাটে ৭৫০ মেগাওয়াটের কেন্দ্র স্থাপন করবে ভারতের রিলায়েন্স গ্রুপ। সংস্থাটি পর্যায়ক্রমে দেশে তিন হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের প্রস্তাব দিয়েছে। এর মধ্যে প্রাথমিকভাবে মেঘনাঘাটে ৭৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্রের অনুমোদন দেয়া হলো। এ কেন্দ্রটির ইউনিট প্রতি বিদ্যুতের দাম ধরা হয়েছে ৫ দশমিক ৮৪৯৮ টাকা। এ প্রকল্পে ২২ বছরে মোট খরচ হবে ৮০ হাজার কোটি ৪৫ লাখ টাকা।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে মতে, কেন্দ্রটি নির্মাণে রিলায়েন্স সরকারের কাছে মেঘনা ঘাট এলাকায় ৪০ একর জায়গা চেয়েছে। সরকারের পক্ষে জমি দেবে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড। প্রকল্পের অধীনে মহেশখালীতে প্রতিদিন ৫০০ মিলিয়ন ঘনফুট এলএনজি আমদানি করার জন্য একটি ভাসমান এলএনজি টার্মিনাল নির্মাণ করবে রিলায়েন্স। মহেশখালি থেকে বাখরাবাদ গ্যাস সিস্টেম পর্যন্ত একটি পাইপলাইন নির্মাণ করবে বাংলাদেশ গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানি। এর ব্যয় রিলায়েন্স বহন করবে। ওই পাইপলাইন দিয়েই এলএনজিকে গ্যাসে রূপান্তর করে সরবরাহ করা হবে। ৭৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য দৈনিক ১৫০ মিলিয়ন ঘনফুট এলএনজি প্রয়োজন হবে। বাকি গ্যাস সরকার আন্তর্জাতিক বাজারদরে তাদের কাছ থেকে কিনে নেবে।

গত বছর ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফরের সময় দেশটির শীর্ষ শিল্পগোষ্ঠী আদানী এবং রিলায়েন্স বাংলাদেশে বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের প্রস্তাব নিয়ে আসে। আদানী গ্রুপের সাথে ওই সময় সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হলেও রিলায়েন্সের সাথে তা হয়নি। কারিগরি কমিটির মূল্যায়ন রিপোর্ট না থাকায় ওই সময় চুক্তি হয়নি। আজ মন্ত্রিসভা কমিটির সভায় অনুমোদনের পর এখন চুক্তি স্বাক্ষরের করবে বিদ্যুৎ বিভাগ।
ক্রয় সংক্রান্ত বৈঠকে ২০১৮ শিক্ষাবর্ষে মাধ্যমিক (বাংলা ও ইংরজি ভার্সন) এবং এসএসসি ভোকেশনাল স্তরের বিনামূল্যে বিতরণযোগ্য পাঠ্যপুস্তক মুদ্রণের লক্ষ্যে ২১ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন মুদ্রণ কাগজ ও দুই হাজার ২০০ মেট্রিক টন আর্ট কার্ড ক্রয়ের প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে। এ জন্য ব্যয় হবে ১৬১ কোটি ৯৫ লাখ টাকা।
অতিরিক্ত সচিব বলেন, রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মান শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় আবাসন পল্লী এলাকায় ছয় ইউনিট বিশিষ্ট দুটি ২০তলা ভবন ও একটি ১৬তলা ভবন নির্মাণে পৃথক তিনটি ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এজন্য ব্যয় হবে ৫১১ কোটি ৪৭ লাখ টাকা। এছাড়াও বৈঠকে বিদ্যুৎ বিভাগের ৬৯২ কোটি টাকা ব্যয়ে আরো চারটি প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়েছে।