বিজয়নগর প্রতিনিধি ঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা অালমগীর কবিরের মুক্তির দাবিতে মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে তার সমর্থকরা।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা থেকে সাড়ে ১২টা পর্যন্ত উপজেলার ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের চান্দুরা বাসস্ট্যান্ড এলাকা অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন আলমগীরের শতাধিক সমর্থক। এর ফলে মহাসড়কের দুই পাশে যানবাহন আটকে যান চলাচল ব্যাহত হয়।

বিক্ষুব্ধরা জানায়, বুধবার সন্ধ্যায় একটি মিথ্যা মামলায় বিজয়নগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আলমগীর কবিরকে গ্রেফতার করে পুলিশ। আগামী ১২ জুন বিজয়নগরে আলমগীরের ব্যক্তিগত উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া একটি ইফতার মাহফিলে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শফিকুল আলমকে দাওয়াত দেয়ার জেরে বিজয়নগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট তানভীর ভূইয়ার সহযোগী আবদুল মতিনের করা একটি মিথ্যা মামলায় আলমগীর কবিরকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

অবিলম্বে আলমগীরের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে তাকে মুক্তি না দিলে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা হবে। পরে বিক্ষুব্ধরা মহাসড়ক থেকে সরে গেলে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়। এদিকে, মহাসড়ক অবরোধের ঘটনায় জুবায়ের নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ।

এ ব্যাপারে বিজয়নগর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আলী আর্শাদ আমদের কথা’কে বলেন, আলমগীর কবিরকে সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে গ্রেফতার করা হয়েছে। এছাড়া মহাসড়ক অবরোধের ঘটনায় আটক যুবকের বিরুদ্ধে দ্রুত বিচার আইনে মামলা দাযের করা হবে।

উল্লেখ্য, গত ২৩ এপ্রিল বিজয়নগরে নবনির্মিত উপজেলা প্রাণিসম্পদ উন্নয়ন কেন্দ্র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ (সদর ও বিজয়নগর) আসনের সংসদ সদস্য উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরীকে আমন্ত্রণ না জানানোয় তার পক্ষ নিয়ে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী অ্যাডভোকেট ছায়েদুল হকের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে বিজয়নগর উপজেলায় হরতালের ডাক দেন বিজয়নগর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট তানভীর ভূইয়া ও বিজয়নগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট জহিরুল ইসলাম ভূইয়া।

মন্ত্রী ছায়েদুল হক বিজয়নগরে ঢুকলে প্রতিহত করার ঘোষণা দেয় জেলা ও উপজেলা ছাত্রলীগ। তবে মন্ত্রী ছায়েদুল হক সাংসদ মোকতাদির চৌধুরীকে ছাড়াই জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শফিকুল আলমকে নিয়ে পুলিশি প্রহরায় প্রাণিসম্পদ উন্নয়ন কেন্দ্র উদ্বোধন করেন।