আখাউড়া প্রতিনিধি ঃ সোমবার গভীর রাতে ঘরের জানালা কেটে নিজের ভাগ্নিকে ঘুম থেকে অস্ত্রের মুখে তুলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করেছে মামা। এ ঘটনায় মেয়েটির অভিযোগের পর মঙ্গলবার দুপুরে ঐ লম্পট মামা বাছির মিয়াকে (৩৫) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। নির্যাতিত মেয়েটিকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলার মনিয়ন্দ ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী ধর্মনগর গ্রামে আপন ভাগ্নীকে অস্ত্রের মুখে তুলে নিয়ে রাতভর ধর্ষণ করে অচেতন অবস্থায় ফেলে পালিয়েছিলেন লম্পট মামা বাছির। তবে মেয়েটির অভিযোগের পর দ্রুতই তাকে খুজে বের করে গ্রেফতার করে পুলিশ। তার বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা হয়েছে। বাছির ওই এলাকার মৃত আবদুল অহাব মিয়ার ছেলে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ছোট মামার ঘরের পাশে একটি রুমে দুই মাস ধরে বসবাস করে আসছিল মেয়েটি।

সোমবার গভীর রাতে জানালা কেটে তার ঘরে ঢুকে পড়ে বড় মামা বাছির মিয়া। সে মেয়েটিকে মুখ চেপে ধরে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে বাড়ির পাশের একটি তাল গাছের নিচে নিয়ে একাধিকবার ধর্ষণ করে।

এরপর মেয়েটিকে মুমূর্ষু অবস্থায় ফেলে পালিয়ে যায় বাছির। রাতে সেহরির রান্না করতে উঠার পর মেয়েটির কান্নার আওয়াজ শুনতে পান নাজমুলের স্ত্রী। তিনি ভাগ্নীকে রক্তাক্ত অবস্থায় দেখতে পান।

আখাউড়া থানার ওসি মোশারফ হোসেন তরফদার  জানান, মঙ্গলবার সকালে মেয়েটি থানায় এসে নিজে  ঘটনাটি জানায়। অভিযুক্ত বাছিরকে গ্রেফতার করা হয়েছে।