—–

বিনোদন প্রতিবেদক: বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশনের (এফডিসি) সব সংগঠন থেকে চিত্রনায়ক শাকিব খান, প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জাজের আব্দুল আজিজ ও অভিনেতা নাদের চৌধুরীর সদস্যপদ খারিজ করেছেন চলচ্চিত্র পরিবারের নেতারা। সেই সঙ্গে যৌথ প্রযোজনার নামে দেশের প্রচলিত আইন যারা ভেঙেছে তাদের সঙ্গে জড়িত সব শিল্পী, পরিচালক, প্রযোজক ও কলা কুশলীদেরও নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

আজ শুক্রবার এফডিসিতে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান পরিচালক সমিতির সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজার।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ঐক্যজোটের আহ্বায়ক মুশফিকুর রহমান গুলজার, নন্দিত অভিনয় শিল্পী ফারুক, আলমগীর, রোজিনা, রিয়াজ, অঞ্জনা ও ১৮ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজার বলেন, ‌‘জাজ মাল্টিমিডিয়া থেকে বারবার বলা হচ্ছে আমরা যৌথ প্রযোজনার বিরুদ্ধে আন্দোলন করছি। কিন্তু এটা ভুল প্রচার। আমরা যৌথ প্রযোজনার নিয়ম মানা হচ্ছে না বলে আন্দোলনে নেমেছি। আর গেল কয়েক বছর ধরেই এই অনিয়ম করে যাচ্ছে জাজ মাল্টিমিডিয়া ও তাদের সহযোগীরা। তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু তাদের সাহায্য করে যাচ্ছেন। শাকিব খানও তাদের পক্ষ হয়ে ইন্ডাস্ট্রিকে খাটো করে নানা কথা বলছেন। তাই তাদের চলচ্চিত্র পরিবারের পক্ষ অবাঞ্চিত ঘোষণা করা হলো।’

অভিনেতা আলমগীর বলেন, ‘কয়েক সপ্তাহ আগেই শাকিব খানকে নিয়ে এসে আমি ১৪ সংগঠনের কাছে তার হয়ে ক্ষমা চেয়েছি। সবাইকে বলেছি যেন শাকিবকে ক্ষমা করে দিয়ে তার উপর নিষিদ্ধ আদেশ তুলে নেয়া হয়। এত অল্পদিনেই সে সব ভুলে গেছে। সে সীমা অতিক্রম করে আমাদের বড় ভাই ফারুক ভাইকে ইঙ্গিত করে বাজে কথা বলেছে। আমরা কোনোদিন রাজ্জাক ভাই, ফারুক ভাইদের নিয়ে কথা বলিনি। কষ্ট পেলেও কোনো কারণে চুপ থেকেছি। একদিনের সিনিয়র হলেও তিনি সিনিয়র।’

এই অভিনেতা আরও বলেন, ‘দিলীপ কুমার ৪০ বছর সিনেমা করেন না। তাই বলে অমিতাভ কী তাকে খাটো করে কথা বলে। ফারুক ভাই ২৫ বছর জীবন যৌবন বিলিয়ে দিয়েছেন এই ইন্ডাস্ট্রির জন্য। তার মতো একটা ছবি শাকিব করুক আগে। ওর কীসের অভাব। আল্লাহ শাকিবকে সব দিয়েছেন। টাকা, নাম-যশ। ওর আসলে শিক্ষার অভাব।’

এসময় তিনি সাংবাদিকদের অনুরোধ করেন, এইসব বেয়াদব, দেশের চলচ্চিত্র বিরোধীদের নিয়ে কিছু লিখুন। দেশের মানুষ জানুক, তারকা আর চলচ্চিত্রগিরির আড়ালে ওরা কী করছে।

অভিনেতা ফারুক বলেন, ‘আমরা চলচ্চিত্রের ধ্বংস বসে বসে দেখবো না। প্রয়োজনে রাস্তায় না খেয়ে থাকবো প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপের জন্য।’

এ সময় চলচ্চিত্র পরিবারের নেতাকর্মী ও সদস্যরা শাকিবের নাম নিয়ে `শেম শেম` করেন।

ঈদের ছুটিতে অফিস বন্ধ উল্লেখ করে গুলজার বলেন, `শাকিব ও আজিজ গংদের এই মুহূর্ত থেকে নিষিদ্ধ করা হলো। অফিস খুললে ওদের লিখিত চিঠি পাঠানো হবে।’

এদিকে নাদের চৌধুরীর সদস্যপদও খারিজ করেছে চলচ্চিত্র পরিবারের নেতারা।