আন্তর্জাতিক ডেস্ক:  কাতারের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্নের পর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার শর্ত দিয়েছে মধ্যপ্রাচ্যের চার দেশ। সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, মিসর ও বাহরাইন এজন্য কাতারকে ১৩ টি শর্ত দিয়েছে। দাবিগুলো মেনে নেয়ার জন্য বেঁধে দেয়া হয়েছে কাতারকে ১০ দিনের সময়। খবর বিবিসির।

দাবির তালিকা কুয়েতের মাধ্যমে দোহার কাছে পাঠানো হয়েছে। কুয়েত কাতার-সংকট নিরসনে মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকা পালনের কথা জানিয়েছে।

১৩ টি শর্তের প্রথমটি হল, কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা টেলিভিশন চ্যানেলটি বন্ধ করে দিতে হবে। দ্বিতীয় শর্ত, ইরান ও তুরস্কের সঙ্গে সামরিক ও কূটনৈতিক সম্পর্ক হ্রাস করা এবং কাতারে তুরস্কের সামরিক ঘাঁটি বন্ধ করে দেয়া।

এছাড়া মুসলিম ব্রাদারহুডের সঙ্গে সকল সম্পর্ক ছিন্ন করতে হবে। কাতারে অবস্থান করা এই চার দেশের তালিকাভুক্ত জঙ্গিদের সেই দেশগুলোর কাছে হস্তান্তর করতে হবে। জঙ্গি সংগঠনগুলোকে সমর্থন ও অর্থায়ন বন্ধ করতে হবে।

দেশ চারটির বিরুদ্ধে কেউ কাজ করে থাকলে সে বিষয়েও তাদেরকে তথ্য দিতে বাধ্য থাকতে হবে। তবে এর আগে কাতারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, তাদের নিজেদের পররাষ্ট্রনীতির ব্যাপারে কারও হস্তক্ষেপ করার অধিকার নেই। কারও অন্যায় আবদারে কাতার তাদের নিজেদের পররাষ্ট্রনীতি পরিবর্তন করবে না।

প্রসঙ্গত, গত ৫ জুন সৌদি আরবের নেতৃত্বে কাতারের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন শুরু হয়। মুসলিম ব্রাদারহুড, আল কায়েদা, ইসলামিক স্টেট (আইএস) সহ অন্যান্য জঙ্গি গোষ্ঠীকে সমর্থন ও অর্থায়নের অভিযোগে মোট নয়টি দেশ দোহার সঙ্গে তাদের কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করেছে। তবে জঙ্গি গোষ্ঠীকে সমর্থনের সেই অভিযোগ বরাবরই অস্বীকার করে আসছে কাতার।

ইসলামি জঙ্গিদের ইন্ধন দেয়ার অভিযোগে ২০১৪ সালেও সৌদি আরবের নেতৃত্বে কাতারের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করেছিল আবুধাবী ও সংযুক্ত মানামা।