আইন মন্ত্রণালয়ের স্মারক ও সচিবের স্বাক্ষর জাল করার মামলায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নিকাহ রেজিস্ট্রার (কাজি) ইসলাম উদ্দিনকে জেলহাজতে পাঠিয়েছেন আদালত।

রোববার বিকেলে জেলার অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. জাহিদ হোসেনের আদালত তার জামিন নামঞ্জুর করে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এর আগে উচ্চ আদালত থেকে চার সপ্তাহের জামিনে ছিলেন ইসলাম উদ্দিন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা রেজিস্ট্রার মো. আনোয়ারুল হক গত ২৬ অক্টোবর নাসিরনগর উপজেলার ধানতলিয়া গ্রামের মো. রফিকুল ইসলাম ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকার ভাদুঘরের মো. ইসলাম উদ্দিনের বিরুদ্ধে অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে অভিযোগ করেন।

অভিযোগটি মামলা হিসেবে নথিভুক্ত করতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) নির্দেশ দেন আদালত।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকার ভাদুঘরে বাসিন্দা মোহাম্মদ মুরাদুচ্ছালেহীনের দায়ের করা অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, রফিকুল ইসলাম ও ইসলাম উদ্দিন পরস্পর চাচা-ভাতিজা।

২০০৬ সালের ২৩ অক্টোবর ইসলাম উদ্দিনের যোগসাজশে রফিকুল ইসলাম ১২নং ওয়ার্ডের জন্য কাজির একটি জাল নিয়োগপত্র তৈরি করেন। ঘটনার প্রায় ১১ বছর পর ওই দুইজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের হলো। এর আগে ২০১৪ সালে মন্ত্রণালয়ের তদন্তে বিষয়টি প্রমাণিত হয়।

কাগজপত্র ঘেঁটে দেখা যায়, আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব বিচার শাখা-৭ ২০১৪ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা রেজিস্ট্রার বরাবর লেখা এক চিঠিতে উল্লেখ করেছেন, মন্ত্রণালয় থেকে ২০০৬ সালে রফিকুল ইসলাম নামে কাউকে নিকাহ রেজিস্ট্রার লাইসেন্স ইস্যু করা হয়নি। যা দায়ের হওয়া মামলায়ও উল্লেখ করা হয়।