বিএনপির হাই কমান্ডের নির্দেশ মানছেন না সমর্থকরা

19 November, 2018 : 10:40 am ৫৭

দলের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার চলাকালে বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ের আশপাশে সমর্থকদের ভিড় না করার নির্দেশ থাকলেও কেউই তা মানছেন না। সাক্ষাৎকার চলাকালে অসংখ্য নেতাকর্মী ও সমর্থকদের ভিড় দেখা গেছে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ের সামনের সড়কে। ফলে গুলশানের ৮৬ নম্বর সড়কে যান চলাচলে বিঘ্ন ঘটছে।

গত রোববার সাক্ষাৎকার শুরুর প্রথম দিনও একই চিত্র দেখা যায়। সেই ভিড় সামলাতে চেয়ারপারসনের সিকিউরিটি ফোর্স সিএসএফ সদস্যরা হিমশিম খাচ্ছেন। কার্যালয়ের ভেতর থেকে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর মাইকে বারবার সমর্থকদের সরে যেতে বলছেন তা সত্ত্বেও মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সমর্থকরা ভিড় করছেন।

সাক্ষাৎকার গ্রহণের দ্বিতীয় দিন সোমবার বরিশাল ১ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী প্রকৌশলী সোবহানকে দিয়ে সাক্ষাৎকার শুরু হয়। এখন চলছে খুলনা বিভাগের সাক্ষাৎকার।

বেলা সোয়া ৩টায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আপনারা এখানে কেউ ভিড় করবেন না। তার এ ঘোষণার পরও সমর্থকদের ভিড় কমেনি।

পরবর্তীতে খুলনা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম মঞ্জু তার পরিচয় দিয়ে মাইকে ঘোষণা দেন বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ের আশপাশে নেতাকর্মীদের ভিড় না করার জন্য।

এর আগে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এক বিজ্ঞপ্তিতে ঘোষণা দেন, সাক্ষাৎকার গ্রহণ চলাকালে কোনো মনোনয়ন প্রত্যাশীর সমর্থকরা যেন গুলশান চেয়ারপারসনের কার্যালয়ের আশপাশে অবস্থান না করে।

সাক্ষাৎকার গ্রহণ চলাকালে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ের গেটের সামনে কথা হয় কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক নেতা নুরুজ্জামান সরদারের সঙ্গে । দলীয় নির্দেশ ভঙ্গ করে মিছিল বের করা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘অনেক নির্দেশনাই তো থাকে সবকিছু কি আর মানা যায়?’

এ নিয়ে কথা হয় কেন্দ্রীয় কৃষক দলের নেতা শাহজাহান মিয়া সম্রাটের সঙ্গে। তিনি মনোনয়ন প্রত্যাশী কি-না জানতে চাইলে সম্রাট বলেন, ‘না, আমি মনোনয়ন প্রত্যাশী নই।’

তবে দলীয় নির্দেশ অমান্য করে এখানে অবস্থান করছেন কেন- এমন প্রশ্নের জবাবে সম্রাট বলেন, ‘ঠিক আছে চলে যাচ্ছি।’

এরপর চলছিল যশোর জেলার মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার। যশোর ৪ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী প্রকৌশলী টিএস আইয়ুবের সমর্থকরা তখন অফিসের সামনে ভিড় করছিলেন।

[gs-fb-comments]