বিজয়নগর প্রতিনিধি।।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য বেসরকারি বিমান ও পর্যটন বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা র.আ.ম. উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপি বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মানে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ বিশ্ব দরবারে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। তিনি বলেন, টঙ্গীপাড়ায় জন্ম নেওয়া খোকা মিয়া ছোট বেলা থেকেই ছিলেন সাহসী এক দেশ প্রেমিক। বয়স বাড়তে সবার কাছে হয়ে উঠেন মুজিব ভাই। দেশ প্রেম ও দেশের মানুষের প্রতি তার গভীর আন্তরিকতা ও নেতৃত্বের গুণাবলীতে তিনি হয়ে উঠেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হিসেবে। যার নেতৃত্বে পাকিস্তানি শাসকদের জুলুম অত্যাচার থেকে মুক্তির জন্য দীর্ঘ ৯ মাসের সংগ্রামে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জিত হয়।

রবিবার (১৭ মার্চ) দুপুর ১২টায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মোকতাদির চৌধুরী আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু শিশুদের অনেক আদর করতেন ও তাদের খুব ভালোবাসতেন। সেজন্য ১৯৯৭ ইং সনে বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকী কে জাতীয় শিশু দিবস হিসেবে ঘোষনা করা হয়। কারন আজকের শিশুরাই আগামী দিনের ভবিষ্যত। আর ভবিষ্যত প্রজন্মকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সম্পর্কে জানার জন্যই এই দিবসটি উদযাপন করা হয়।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আল মামুনের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ সদস্য জহিরুল ইসলাম ভূইয়া, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক জাহাঙ্গীর মৃধা, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহবায়ক ও ইছাপুরা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জিয়াউল হক বকুল, বিজয়নগর প্রেসক্লাবের সভাপতি মৃণাল চৌধুরী লিটন, উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রফিকুল ইসলাম মাস্টার, সাধারন সম্পাদক হাজী রাসেল খান, উপজেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম আহবায়ক সুনির্মল সাহা, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ইলিয়াস সরকার, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মোহাম্মদ মাহবুব হোসাইন, সাধারন সম্পাদক শফিকুল ইসলাম রাজবি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মেহের নিগার এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় অন্যান্যের মাঝে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট তানভীর ভূইয়া, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফয়জুন্নাহার টুনি, জেল্ পরিষদ সদস্য সৈয়দা নাখলু আকতার সহ উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা কর্মচারী, আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ প্রমুখ।

পরে প্রধান অতিথি ও অন্যান্য অতিথিবৃন্দগণ জন্মবার্ষিকীর কেক কাটেন।

এদিকে সকাল ১০টায় উপজেলা চত্বর থেকে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে পুনরায় উপজেলা চত্বরে এসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। এসময় উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ,আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন।