সুলতানপুর_ইউনিয়নে_বিদ্যুৎ_সমস্যা

16 April, 2019 : 10:55 am ১২৬

পঠকের কথা।।

প্রসজ্ঞঃ #সুলতানপুর_ইউনিয়নে_বিদ্যুৎ_সমস্যা
২০০০ সালের ন্যায়, ২০১৯ সালে বিদ্যুৎ একই আকার ধারন করালেন সুলতানপুর ইউনিয়নের পল্লীবিদ্যুৎ ইনচার্জ মোঃ মিজানুর রহমান। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার, দেশ রত্ন, জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকার, প্রতিটি ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌছানোর প্রতিজ্ঞা করেছেন, আর বিদ্যুৎ থাকবে লোড শেডিং মুক্ত। কিন্তু ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদরের সুলতানপুর ইউ/পির বেলায় তা বিপরীত। তিনি যেমন অলস টাইপের আর উনার জুনিয়র কর্মকর্তাগনও আরও বেশি অলস আর ঘুম প্রিয়। তাদের জন্য একটা নির্দিষ্ট মোবাইল ব্যবহার করতে ধার্য করা আছে এজন্য যে, সাধারণ মানুষ যেন ফোনে কথা বলে তাদের অসুবিধাজনক সংবাদ প্রেরন করতে পারে। কিন্তু দুঃখের বিষয় এই যে ১০০/১৫০ কল দিলে একটা ফোন রিচিভ করে কিনা তাদের অভিরুচি র ব্যাপারে দাড় করিয়েছে নতুবা যে কেউ কল দিয়ে দেখতে পারেন। এছাড়াও বর্তমান ইনচার্জ মিজানুর রহমান সাহেব যথাসময়ে বিদ্যুৎ লাইন সংলগ্ন গাছ পালা / ডাল পালা কাটেন নাই। তিনি ব্যাঙ্গে ডাক দিলে কারেন লাইন অফ করে দেয়, কোন কোন স্থানে ৪/৫ দিনও বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন রাখে, উদাহরণ আমার এলাকা বিরাম পুর।
উনাকে কল দিলে, উনি বলে উনার ব্যক্তিগত কাজে ব্যস্ত আছেন আর অপর দিকে অফিস কন্ট্রোল রুমে কল দিলে রিং বাজতে থাকে কল ধরে না। আমাদের সমস্যা দিন দিন বাড়তেই চলছে, সাধারণ মানুষ মুখ খুলে কিছু বলতে পারে না এজন্য যে, উনার জুনিয়র লাইন ম্যান যারা রাস্তায় ঘুরে বেরান তারা অনির্দিষ্ট কালের জন্য সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দিবে বলে প্রায় লোককেই হুমকি দিয়ে থাকে।
সুলতানপুর ইউনিয়ের জনগন অতিশয় অস্বস্তি ভোগ করছে, আমাদের দাবী সুলতানপুর পল্লীবিদ্যুৎ ইনচার্জ সহ অলস টাইপের অফিসারদের আশু পদত্যাগ চাই।
উনি পদত্যাগ করলে সুলতানপুরের বিদ্যুৎ পুনরায় লোডশেডিং মুক্ত হব বলে আশা করছি।

[gs-fb-comments]