হবিগঞ্জ।।

সুবীর নন্দীর পৈতৃক ভিটায় সংগীত চর্চা কেন্দ্র চান স্থানীয়রা। হবিগন্জের বানিয়াচং উপজেলার নন্দীপাড়া গ্রামের কৃতি সন্তান সুবীর নন্দী। তার উত্তরসূরিরা ছিলেন জমিদার পরিবারের।নিজেদের বংশের নামে ( নন্দী)
গ্রামের নামকরণ করা হয় নন্দী পাড়া। বানিয়াচংয়ের হাওর জুড়ে তাদের বিশাল সম্পত্তি। কিন্তু দীর্ঘদিন কেউ বসবাস না করায় পৈতৃক ভিটা ও জমি দখল করে নিয়েছে স্থানীয় প্রভাবশালীরা।

বানিয়াচং উপজেলায় ” নন্দী পাড়ায়” সুবীর নন্দীর বাড়িতে গিয়ে দেখা গেছে, তাদের অধিকাংশ জায়গা দখল হয়ে গেছে। ভেঙ্গে ফেলা হয়েছে অনেক স্থাপনা।
শুধুমাত্র একটি ভবন জরাজীর্ণ অবস্থায় পড়ে রয়েছে। যেখানে রাতে নেশাখোরদের আাড্ডা বসে।

এলাকাবাসী জানায়, ১৯৭১ সালে রাজাকারদের অত্যাচারে স্বপরিবারে ভারতে চলে যায় সুবীর নন্দীর পরিবার। স্বাধীনতার পর দেশে ফিরে আসলে বাবার চাকরির কারণে হবিগন্জ শহড়ে থাকত সুবীর নন্দীর পরিবার। এদিকে দীর্ঘদিন শহড়ে পড়ে থাকায় হাওরের ফসলি জমিসহ ভিটে প্রভাবশালীরা দখল করে ফেলে।আর কিছু জায়গা সরকারি অফিস হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে।
সুবীর নন্দী দীর্ঘদিন ধরে পৈতৃক ভিটা পুনরুদ্ধারে চেষ্টা করেছেন।সর্বশেষ হবিগন্জ স্টেডিয়ামে লোকজ সাংস্কৃতিক উৎসবে এসে হবিগন্জ জেলা প্রশাসক মৌখিক আহব্বান করেছিলেন।

কিন্তু দুঃখের বিষয়, পৈতৃক ভিটার নিজের শেষকৃত্য হওয়ার ইচ্ছেটুকু পূরণ হলোনা সুবীর নন্দীর।