মাগুরা।।
মাগুরার শ্রীপুরে শুকর মনে করে সাহিদা বেগম (৪০) নামে এক গৃহবধূকে কুপিয়ে হত্যা করেছে শুকর ও খরগোশ শিকারীরা। আজ বিকাল ৩টার দিকে উপজেলার মহেশপুর গ্রামে নিজের জমিতে মরিচ তুলতে গিয়ে এ হত্যাকাণ্ডের শিকার হন তিনি।

নিহত সাহিদা ওই গ্রামের গোলাম রসুলের স্ত্রী। এ ঘটনায় পুলিশ মদন মণ্ডল (৩০) নামে এক যুবককে আটক করেছে।
এলাকাবাসী জানান, শ্রীপুর উপজেলার মালাইনগর গ্রামের অনুকূল মন্ডলের ছেলে মদন মন্ডল পেশায় একজন শূকর পালক। সম্প্রতি তার একটি শূকর হারিয়ে যায়। অনেক খোঁজাখুঁজির পর বিকেলে পার্শ্ববর্তী মহেষপুর গ্রামের মাঠে তার হারিয়ে যাওয়া শূকরটি দেখতে পায়।
অনেক চেষ্টা করেও ধরতে না পেরে বাড়ি থেকে বল্লভ (ধারালো অস্ত্র ) আনে। মাঠের মরিচ খেতের মধ্যে শূকর নড়াচড়া করছে ভেবে মদন বল্লভ দিয়ে কোপ দিলে জাহিদা বেগম ঘটনাস্থলেই তিনি নিহত হন। তিন সন্তানের জননী জাহিদা ওই গ্রামেকৃষক গোলাম রসুলের স্ত্রী। গৃহবধূ ওই সময় খেতে বসে মরিচ তুলছিলেন।
শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ আওলাদ হোসেন জানান, বিকেলে সাহিদা বেগম নিজ জমিতে মরিচ তুলছিলেন। এ সময় মালাইনগর গ্রামের অনুকূল মণ্ডলের ছেলে মদন মণ্ডল এবং বালিয়াকান্দির পটরা গ্রামের মনি কুমার শুকর মনে করে দূর থেকে তার দিকে ভ্যানা (সড়কি জাতীয়) ছুড়ে মারেন।
ভ্যানার আঘাতে সাহিদা চিৎকার দিলে ধরা পড়ে যাওয়ার ভয়ে শিকারীরা তাকে উপর্যুপরি কুপিয়ে হত্যা করেন।

ঘটনা টের পেয়ে গ্রামবাসী মদন মণ্ডলকে ধরে গণ পিটুনি দেয়। তবে, মনি কুমার পালিয়ে যান।

ঘাতক মদন মণ্ডল শ্রীপুর থানা পুলিশের হেফাজতে রয়েছে। নিহতের মৃতদেহ ময়নাতদন্তর জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।