বিরল উদাহরণ, মানবতা,নাকি পিতৃঋণ?

19 May, 2019 : 9:15 am ১৮১

নাসিরনগর।।

পিতার ঘনিষ্ট রাজনৈতিক সহচরের মৃত্যুতে নিহতের পরিবারের খোঁজ নিতে সাবেক মন্ত্রী পুত্র ডাঃ রায়হানুল হক ধরমন্ডলে।

ব্রাহ্মনবাড়িয়া -১ সংসদীয় ২৪৩ নাসিরনগর আসনের এমনকি সারা বাংলা দেশের রাজনৈতিক অঙ্গনে যিনি ছিলেন, সৎ অাদর্শবাদী রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব ।বলছিলাম প্রয়াত মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রী এড. মোঃ ছায়েদুল হকের কথা।যিনি অাজ নেই,রয়েছে তার অসংখ্য স্মৃতি ও অাদর্শ। প্রায় দুই বছরের মতো হতে যাচ্ছে তিনি নেই,নাসিরনগরের ১৩ টি ইউনিয়নের প্রতিটি মানুষের হৃদয়ে লেখা অাছে তার নাম।

নাসিরনগরের প্রতিটি যুগান্তকারী উন্নয়নের রুপকার হিসেবে সোনার হরফে লেখা থাকবে ছায়েদুল হকের নাম।নাসিরনগরবাসির কাছে কোনদিন এই মহান নেতার শূণ্যতা পূরণ হবার নয়।

প্রয়াত মন্ত্রী ছায়েদুল হকের ব্যক্তিগত ইমেজে নির্বাচনী এলাকায় অাওয়ামী লীগের জনপ্রিয়তা ছিলো কানায় কানায় পরিপূর্ণ। প্রয়াত নেতা ছায়েদুল হকের অন্যতম ঘনিষ্ট রাজনৈতিক সহযোদ্ধা ছিলেন ধরমন্ডল ইউনিয়ন অাওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রবীন নেতা মোঃ মিয়াজ উদ্দিন ফকির মেম্বার।

তিনি গত ১১মে ২০১৯ রোজ শনিবার রাত দুই ঘটিকার সময় ইন্তেকাল করেন। এই শোক সংবাদ শোনার পর ১৭ মে ২০১৯ শুক্রবার হঠাৎ করে ধরমন্ডলে প্রয়াত ফকির মেম্বারের বাড়িতে উপস্থিত হোন প্রয়াত মন্ত্রী পুত্র ডা.রায়হানুল হক। বাড়ীতে গিয়ে উনার ছেলে ও পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের খোঁজ খবর নেন ও সান্ত্বনা দেন ।প্রয়াত মন্ত্রী ছায়েদুল হক সাহেবের একমাত্র সূযোগ্য সন্তান ডাঃ রায়হানুল হক।

এ সময় উপস্থিত স্বজনরা অাবেগাপ্লুত হয়ে উঠেন।ডাঃ রায়হানুল হক প্রয়াত মোঃ মিয়াজউদ্দিন ফকির মেম্বারের রাজনৈতিক জীবন ও অবদানের কথা উল্লেখ করে, গভীর শোক ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

[gs-fb-comments]