ব্রাহ্মণবাড়িয়া।।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দুলাভাইয়ের পরকীয়া প্রেমের জেরে সাগর মিয়া (২৪) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। সোমবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে জেলা সদর হাসপাতালের সামনে এ ঘটনা ঘটে। নিহত সাগর শহরের সরকারপাড়া মহল্লার বেপারীপাড়ার রতন মিয়ার ছেলে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও চারজন। তাদেরকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, বেপারীপাড়ার জসিম উদ্দিন ও মনি আক্তার পপির পাঁচ বছর আগে বিয়ে হয়। তাদের দেড় বছর বয়সী একটি শিশু সন্তানও রয়েছে। জাসিম শহরের একটি হাসপাতালে চাকরি করেন। চাকরির সুবাদে আরেকটি হাসপাতালে চাকরি করা এক মেয়ের সঙ্গে তার পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। গত দুইবছর আগে বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর জসিমের নামে পুলিশের কাছে অভিযোগ করেন পপি। পরবর্তীতে আর ওই মেয়ের সঙ্গে সম্পর্ক রাখবে না মর্মে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে বিষয়টি মিমাংসা করা হয়। কিন্তু জসিম গোপনে ওই মেয়ের সঙ্গে সম্পর্ক রেখেছিল। সোমবার রাতে ওই মেয়েকে নিয়ে জসিম শহরের কোর্ট রোডস্থ একটি বিপণী বিতানের সামনে ঘুরাঘুরি করছিল। কেউ একজন তাদেরকে দেখতে পেয়ে পপিকে ফোন করে বিষয়টি জানায়। পরে পপি ঘটনাস্থলে এসে তাদেরকে হাতেনাতে ধরে কথা বলার জন্য সদর হাসপাতাল চত্ত্বরের ভেতরে নিয়ে যায়। এরপর উভয় পক্ষের স্বজনদের ডাকা হয় কথা বলার জন্য। অবস্থা বেগতিক দেখে নিজের স্বজনদের ডেকে পালিয়ে যান জসিম। এরপর জসিমের স্বজনরা এসেই পপির স্বজনদের এলাপাতাড়িভাবে মারধর শুরু করে। এ সময় পপির চাচাতো ভাই সাগরকে ছুরিকাঘাত করা হয়। পরে তাকে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ঢাকায় রেফার্ড করেন। পরবর্তীতে ঢাকায় নেয়ার পথে সাগরের মৃত্যু হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আতিকুর রহমান জানান, এই ঘটনায় একজনকে আটক করা হয়েছে। মরদেহ ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতাল মর্গে ময়নাতদন্তের জন্য রাখা হয়েছে।