বরিশাল।।

ঈদুল ফিত‌রের প‌রের দিন বরিশাল নদীবন্দরে তেমন একটা চাপ নেই যাত্রীদের। তবে রাজধানী ঢাকার উ‌দ্দে‌শ্যে বৃহস্পতিবার (৬ জুন) রা‌তে ব‌রিশাল নদীবন্দর ছেড়েছে পাঁচটি লঞ্চ। প্র‌তি‌টি ল‌ঞ্চেই  ঢাকাগামী  যাত্রী থাক‌লেও স্বাভা‌বিক সম‌য়ের থে‌কেও অনেককাল কম বলে জা‌নি‌য়ে‌ছেন ব‌রিশাল সদর নৌ-থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মমকর্তা (ও‌সি) আবাদুল্লাহ আল মামুন।

ত‌বে এ যাত্রীর চাপ শুক্রবার (৭ জুন) থেকে কয়েকগুণ বাড়বে এবং পরবর্তী শ‌নিবারও একই অবস্থা থাক‌বে ব‌লে জা‌নি‌য়ে‌ছেন লঞ্চ মালিকরা। য‌দিও বাড়তি যাত্রীদের চাপ সামাল দিতে সার্বিক প্রস্তুতিও সেরে রেখেছেন তারা।

বরিশাল নদী বন্দর সূত্রে জানা যায়, ঈদের প‌রের দিনে বরিশাল নদী বন্দর থেকে সরাসরি অ্যাড‌ভেঞ্চার-১-সহ ঢাকার উদ্দেশ্যে ৫টি লঞ্চ যাত্রা ক‌রে‌ছে। এছাড়া বিআইড‌ব্লিউটএ’র সরকারি জাহাজ ও ভায়া রুটের আরো বেশ কয়েকটি লঞ্চ বরিশাল নদীবন্দর হয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়েছে।

সন্ধ্যা থেকেই লঞ্চগুলোতে যাত্রীদের আনাগোনা শুরু হয়।

ঢাকাগামী লঞ্চের যাত্রী শ‌রিফুল ইসলাম জানান, ব্যবসায়ী হওয়ায় একটু আ‌গেভা‌গেই  ঢাকায় ফির‌তে হ‌চ্ছে। ত‌বে স্কুল খুল‌তে সময় লাগায় স্ত্রী-সন্তানররা যা‌বেন আ‌রো ক‌য়েক‌দিন প‌রে।

এদিকে ঈদের পর আজই মূলত রাজধানীতে ফেরা মানুষের পদচারণা শুরু হয়েছে বলে জানিয়ে লঞ্চ স্টাফরা বলছেন, আগামীকাল যাত্রীর চাপ অনেকটা বাড়বে।

অপরদিকে যাত্রী সংখ্যা বাড়লেও ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে বরিশাল নদীবন্দর থেকে কোনো লঞ্চ ছাড়তে দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছেন বরিশাল বিআইডব্লিউটিএ’র নৌ নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগের উপ-পরিচালক আজমল হুদা মিঠু সরকার।

তিনি জানান, নিরাপদ যাত্রার লক্ষ্যে লঞ্চ মালিক, মাস্টার-ড্রাইভার ও প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ের সঙ্গে ঈদের আগেই সভা ও মোটিভেশন ওয়ার্ক করা হয়েছে। এছাড়া বেশ কিছু সতর্কতামূলক সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কার্যক্রম পরিচালনা ও বন্দর এলাকায় যাত্রীসহ সকলের সচেতনতায় মাইকে প্রচারণা করা হচ্ছে।

এদিকে যাত্রীদের ভিড় তেমন একটা না থাকায় অনেকটা ঢিমে-তালেই আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করছেন।