ব্রাক্ষণবাড়িয়া।।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা যুবলীগের বর্তমান কমিটি পার করেছে ১৫ বছর। দীর্ঘদিন সম্মেলন না হওয়ায় জেলা সদর ও উপজেলাগুলোতে যুবলীগের রাজনীতি স্তিমিত হয়ে আছে। সৃষ্টি হচ্ছে না নতুন নেতৃত্ব। নেতৃত্ব দিতে আগ্রহীরা এখন ক্ষোভ-বিক্ষোভ আর হতাশায় জর্জরিত।

জানা যায়, ২০০৪ সালের ২৮ জুন জেলা যুবলীগের সর্বশেষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাহবুবুল আলম খোকনকে সভাপতি ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সাবেক ভিপি সিরাজুল ইসলাম ফেরদৌসকে সাধারণ সম্পাদক করে তিন বছরের জন্য কমিটি করে কেন্দ্রীয় কমিটি। পরে ৭১ সদস্যের জেলা কমিটি অনুমোদন করা হয়। কমিটির সভাপতি মাহবুবুল আলম খোকন জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মনোনীত হওয়ায় ২০১৫ সালের ২৫ জুলাই দায়িত্ব ছেড়ে দেন। এরপর থেকে চার বছর ধরে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন সিনিয়র সহসভাপতি শাহানুর ইসলাম। এই কমিটির সহসভাপতি আশিকুল আলম বাবলু এবং কার্যকরী সদস্য মনিরুল ইসলাম মারা গেছেন। অর্থ সম্পাদক সাইদুজ্জামান হিমেল এবং কার্যকরী সদস্য সাফায়াত খন্দকার ইতালিপ্রবাসী। কার্যকরী সদস্য সোহেল রানা ট্রিপল মার্ডার মামলায় ফাঁসির আসামি হিসেবে কারা প্রকোস্টে। যুগ্ম সম্পাদক মোবাশ্বের আলী খাদেম বাবু এবং কার্যকরী সদস্য সাচ্চু ঢাকায় ব্যবসা নিয়ে ব্যস্ত।

সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য সৈয়দ মহসীন কেন্দ্রীয় যুবলীগ কমিটিতে। এভাবে কমিটির প্রায় সবাই কোন না কোনভাবে বিচ্ছিন্ন।

জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম ফেরদৌস বলেন, কমিটি ৭১ সদস্যের হলেও কাজের সময় পাওয়া যায় অল্প কয়েকজনকেই। জেলা যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শাহানুর ইসলাম বলেন, ‘আমরা সম্মেলন চাই। ’

জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি মাহবুবুল আলম খোকন বলেন, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সিদ্ধান্তহীনতার কারণেই ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা যুবলীগের সম্মেলন হচ্ছে না। ১৫ বছর ধরে সম্মেলন না হওয়ায় পদপ্রত্যাশী নেতাদের ক্ষোভ বাড়ছে। কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদ জানান, তারিখ করে সম্মেলন শিগগিরই করা হবে।