ব্রাক্ষণবাড়িয়া।।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার রূপসদী গ্রামের রিপন মিয়া হত্যা মামলায় তিনজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ শফিউল আজম এ রায় দেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- বাঞ্ছারামপুর উপজেলার ভেলানগর গ্রামের সিদ্দিক মিয়ার ছেলে শিপন মিয়া (৪৫), বাতেন মিয়ার ছেলে মো. কবির (৩৪) ও কাজী মোস্তফার ছেলে মো. হাবিব (২৩)। রায় ঘোষণার সময় আসামিরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন। এ মামলার রিপন মিয়ার স্ত্রী আমেনা বেগমকে (৩৫) বেকসুর খালাস দেয়া হয়েছে।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, বাঞ্ছারামপুর উপজেলার রূপসদী গ্রামের রিপন মিয়ার স্ত্রীর সঙ্গে পার্শ্ববতী ভেলানগর গ্রামের সিদ্দিক মিয়ার ছেলে শিপন মিয়ার মাদক ব্যবসা নিয়ে দ্বন্দ্ব ছিল। পাশাপাশি রিপনের স্ত্রী আমেনা বেগমের সঙ্গে শিপনের পরকীয়া প্রেমেরও সম্পর্ক ছিল। এসবের জেরে পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী গত ২০১৬ সালের ২ জানুয়ারি থেকে ১০ জানুয়ারির কোনো এক সময় আসামিরা রিপনকে হত্যা করে তার শ্বশুরবাড়ি ভেলানগর গ্রামের একটি জমিতে পুঁতে রাখে। পরবর্তীতে ১০ জানুয়ারি দুপুরে মাটি খুঁড়ে রিপনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় ওইদিন নিহত রিপনের ভাই বোরো মিয়া বাদী হয়ে আমেনা বেগম ও শিপন মিয়ার বিরুদ্ধে বাঞ্ছারামপুর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

মামলাটি তদন্ত করে বাঞ্ছরামপুর থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) সঞ্জিত কুমার রায় আদালতে চার আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। অভিযুক্তদের মধ্যে আমেনা বেগম জামিনে কারামুক্ত ছিলেন। বাকিরা সবাই কারাগারে রয়েছেন।

মামলার রায়ে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ও জেলা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) এস এম ইউসুফ সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

আসামিপক্ষের আইনজীবী মোফাক খায়রুল ইসলাম বলেন, এক নম্বর আসামি আমেনা বেগমকে খালাস দেয়ায় আমি সন্তুষ্ট। তবে দণ্ডপ্রাপ্ত বাকি আসামিদের ব্যাপারে আমরা উচ্চ আদালতে আপিল করব।