ঢাকা।।

 প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সময়সাপেক্ষে জুলাইয়ের যে কোনো সময়ে ই-পাসপোর্ট বা ইলেকট্রনিক পাসপোর্ট কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।

বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সচিবালয় বিটে কর্মরত সাংবাদিকদের সংগঠন বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরাম (বিএসআরএফ) এর নবনির্বাচিত কমিটির নেতাদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ ও মতবিনিময়কালে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী একথা জানান।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ইতোমধ্যে দুই কোটি ৬০ লাখ মানুষের হাতে এমআরপি পাসপোর্ট তুলে দেওয়া হয়েছে। ই-পাসপোর্ট সারা বিশ্বে একটি নতুন প্রযুক্তি। জার্মানির একটি খ্যাতনামা প্রতিষ্ঠান ই-পাসপোর্ট ও ই-গেট নিয়ে কাজ করছে। তারা সব ধরনের কাজ গুছিয়ে এনেছেন। এটা প্রায় রেডি হয়ে এসেছে। আমার মনে হয় প্রধানমন্ত্রী জুলাইয়ের যে কোনো সময় ই-পাসপোর্টের উদ্বোধন করতে পারবেন।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণারয় জানায়, পাঁচ ও ১০ বছর মেয়াদি হবে এ পাসপোর্ট। দুই ক্যাটাগরির পাসপোর্টের একটি ৪৮ পৃষ্ঠার, আরেকটি ৭২ পৃষ্ঠার। যারা ৭২ পৃষ্ঠার পাসপোর্ট নেবেন তাদের ক্ষেত্রে ফি-ও বেশি হবে।
‘বাংলাদেশ ই-পাসপোর্ট ও স্বয়ংক্রিয় বর্ডার নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাপনা প্রবর্তন’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ই-পাসপোর্ট দেওয়া হবে। প্রকল্পের মোট ব্যয় চার হাজার ৬৩৬ কোটি টাকা। সম্পূর্ণ সরকারি অর্থায়নে ২০১৮ সালের জুলাই হতে ২০২৮ সালের জুন পর্যন্ত প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদফতর। ১০ বছরে মোট ৩০ মিলিয়ন পাসপোর্ট তৈরি করা হবে। এর মধ্যে দুই মিলিয়ন তৈরি হবে জার্মানিতে। ফলে প্রথমে যারা আবেদন করবেন তাদের পাসপোর্ট জার্মানি থেকে তৈরি হয়ে আসবে। পাঁচ ও ১০ বছর মেয়াদি হবে পাসপোর্ট।

এসময় বিএসআরএফ’র সভাপতি তপন বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমেদ, যুগ্ম-সম্পাদক আনিসুর রহমান তপন, অর্থ সম্পাদক মাসউদুল হক, সাংগঠনিক সম্পাদক ইসমাঈল হোসেন, দফতর সম্পাদক মাসুদ রানাসহ সংগঠনের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।