সরাইল যুবলীগের নেতৃত্বে কারা আসছেন

10 October, 2020 : 12:19 pm ৪০২

সরাইল।।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সরাইল উপজেলা শাখার যুবলীগের পদও প্রত্যাশী নেতাকর্মীদের মাঁঝে ইতিমধ্যে শুরুহয়েছে নেতৃত্বে আসার প্রতিযোগিতার আমেজ । কে/ কার থেকে রাজনীতিকভাবে পরিচ্ছন্ন ও কর্মীশক্তি বেশিনিয়ে সরাইল উপজেলা যুবলীগকে সু-সংঘঠিত করবে এটারও যেন, এবার কঠিন প্রতিদ্বন্ধিতার কথা বলছেন, কেন্দ্রীয় যুবলীগ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা যুবলীগের সিনিয়র নেতারা ।সঠিকভাবে ঝাঁছাই-বাছাই করে কর্মদক্ষতা ও প্রকৃত আওয়ামী পরিবারের সদস্যদেরই আনা হবে যুবলীগের নেতৃত্বে এমনটাও বলছেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা যুবলীগের নেতারা।বিভিন্ন সময়ে আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতাদের নির্দেশনায় বির্তকিতদের যুবলীগের কমিটিতে রেখে বিভ্রান্তিত্বে পড়তে হয়েছে জেলা ও কেন্দ্রীয় কমিটির নেতাদের। আওয়ামী লীগের নেতাদের পছন্দের ব্যক্তিকে যুবলীগের কমিটিতে রেখে ব্যাপক সমালোচনায়ও পড়তে হয়েছে যুবলীগের অনেক নেতাকে। সরাইল উপজেলা যুবলীগ ও উপজেলা ছাত্রলীগের প্রধান নেতৃত্বে থাকা একাধিক নেতারা এবার সরাইল উপজেলা যুবলীগের নেতৃত্বে আসতে ইতিমধ্যে জেলা নেতাদের কাছে জীবন বৃত্তান্ত জমা দিয়ে যুবলীগের পদ পেতে তদবীর-লবীং শুরু করেছেন তারা।এর আগে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এডভোকেট শাহানুর ইসলামের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট সিরাজুল ইসলাম ফৈরদৌসের সঞ্চালনায় জেলা যুবলীগের কার্যকরি কমিটির সকল নেতৃবৃন্দরা জেলা যুবলীগের এক বর্ধিতসভায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সকল ইউনিট ও উপজেলা যুবলীগের কমিটি গঠনের সিদ্বান্ত নেন।সেই‘ বর্ধিতসভায় বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির চেয়ারম্যান ও সাধারণ সম্পাদকের দিক-নির্দেশনা মোতাবেক প্রকৃত আওয়ামী পরিবার, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক, পরিচ্ছন্ন সমাজ ব্যক্তিত্ব, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজ, ভুমিদস্যু এবং টেন্ডারবাজ মুক্ত যুবলীগ গঠন করার লক্ষ্যে খুবশিখরীই ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা যুবলীগের আওতাধীন ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহর যুবলীগ,থানা যুবলীগ, সরাইল উপজেলা যুবলীগ, আখাউড়া উপজেলা যুবলীগসহ যুবলীগের আংশিক সকল কমিটিকে পূর্ণাঙ্গ করার ঘোষণা দেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা যুবলীগের নেতারা।বর্ধিত সভায় জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট সিরাজুল ইসলাম ফেরদৌস বলেন, যুবলীগের কমিটির পদনিতে অনেকেই আপনাদের কাছে যাবে। ভাল, খারাপ ঝাঁছাই-বাছাই করার দায়িত্ব আপনাদের। আপনাদের বিবেকের কাছে আমার প্রশ্ন ? খারাপদের যদি আপনারা সমর্থণ দেন, তাহলে ভবিষ্যতে তারা দলের ভিতর বিশৃঙ্গলা সৃষ্টি করবে কী না এটা আপনাদের কাছে আমি প্রশ্ন রাখলাম ।এদিকে সরাইল উপজেলা যুবলীগের সভাপতি পদে প্রায় এক ডজন পদও প্রত্যাশীর নাম শুনা গেলেও সরাইল যুবলীগের সদ্য বিলুপ্ত করা কমিটির সভাপতি এডভোকেট আশরাফ উদ্দিন মন্তুুর পাল্লাই ভারী বলে বলছেন, সরাইল উপজেলা যুবলীগের আওতাধীন বিভিন্ন ইউনিয়নের যুবলীগের নেতাকর্মীরা।

অন্যদিকে সরাইল উপজেলা যুবলীগের সভাপতি পদও প্রত্যাশী হিসেবে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পরিষদের সরাইলের সদস্য পায়েল হোসেন মৃধা, সরাইল উপজেলা যুবলীগের সদ্য বিলুপ্ত করা কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি স্কুল শিক্ষক আল এমরান, সরাইল উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান মোঃ আবু হানিফ, বিলুপ্ত করা কমিটির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মোঃ জিয়াউল হক জজ মিয়া, সরাইল উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি মোঃ মফিজুর রহমান রনি, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মোঃ বেলায়েত হোসেন মিল্লাত এবং জাকির হোসেনও তদবীর-লবীং করছেন সরাইল যুবলীগের সভাপতির পদ নিতে ।অপরদিকে সাধারণ সম্পাদক পদে একাধিক পদও প্রত্যাশী থাকলেও সরাইল উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোঃ হাফেজুল আসাদ সিজারের নাম শুনাযাচ্ছে আলোচনায় বেশি। সরাইল উপজেলা যুবলীগের তৃণমূলের নেতাকর্মীদের কাছেও পছন্দের হয়ে উঠেছেন সাবেক এই ছাত্রলীগ নেতা হাফেজুল আসাদ সিজার।এছাড়াও সরাইল উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক পদে মোঃ সুজন মিয়া, আলমগীর মিয়া, মোঃ সুলু মিয়া ও আজিম মিয়া সম্মেলনে পদও প্রত্যাশী বলে জানাগেছে।সরাইল উপজেলা যুবলীগের প্রাক্তন সভাপতি ও সম্মেলনে সভাপতি প্রার্থী এডভোকেট আশরাফ উদ্দিন মন্তুু বলেন, আমি বিগত সরাইল উপজেলা যুবলীগের সম্মেলনে বিপুল ভোটে সভাপতি পদে নির্বাচিত হয়ে ছিলাম। সরাইল উপজেলার প্রতিটি ওয়ার্ড থেকে শুরু করে ইউনিয়ন পর্যন্ত তৃণমূলকে আমি শক্তিশালী করার লক্ষ্যে কাজ করেছি।আধিপত্য বিস্তারের গোষ্ঠীগত একটি হত্যা মামলায় রাজনীতিক প্রতিহিংসাভাবে ষড়যন্ত্রমূলক ভাবে চার্জশীটে আমার নাম অন্তর্ভুক্ত হওয়ায়, যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দগণ সরাইল উপজেলা যুবলীগের কমিটি বিলুপ্ত করেন। উক্ত মিথ্যা মামলায় আমি নির্দোষ হওয়ার কারণে বিজ্ঞ আদালত আমাকে সরাসরি জামিন দিয়েছেন। আমাকে পুনরায় উপজেলা যুবলীগের দায়িত্ব দিলে’ আমি উপজেলা যুবলীগের সকল নেতৃবৃন্দকে সাথে নিয়ে যথাসময়ে সুন্দর একটি সম্মেলন উপহার দিতে পারবো বলে‘ আমি আশাবাদী।অন্যদিকে সভাপতি প্রার্থী পায়েল হোসেন মৃধা বলেন, আমি আওয়ামী পরিবারের সন্তান। যুবলীগের সম্মেলন হলে‘ অবশ্যই সভাপতি পদে আমি বিজয়ী হব। অপর সভাপতি প্রার্থী উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান আবু হাসিফ বলেন, সরাইল উপজেলা যুবলীগের সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা আমাকে সভাপতি পদে দেখতে চাচ্ছেন। আশাকরি সম্মেলন হলে‘ আমি বিজয়ী হব।এদিকে সাধারণ সম্পাদক পদও প্রার্থী ও সরাইল উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক হাফেজুল আসাদ সিজার বলেন, আমার পরিবার সরাইলের মধ্যে অন্যতম একটি আওয়ামী পরিবার হিসেবে পরিচিত । আমি ২০১০ সাল থেকে সরাইল উপজেলা ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে সক্রিয়ভাবে জড়িত হয়। ২০১২ সালে সরাইল উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়। ২০১৫ সাল থেকে আমি সরাইল উপজেলা যুবলীগের সাথে জড়িয়ে আছি। যুবলীগের প্রতিটি কর্মসূচী সফল করার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি। আশা করি সরাইল যুবলীগের সম্মেলনে সাধারণ সম্পাদক পদে আমি ইনশাল্লাহ্ বিজয়ী হব। এবং আমি বিশ্বাস করি, রাজপথকে রাজপথই পরিচয় করিয়ে দিবে আমি কে ? ।অন্যদিকে সরাইল উপজেলার নোয়াগাঁও ইউনিয়ন শাখা যুবলীগের সভাপতি মোঃ হারুন মিয়া বলেন, সরাইল যুবলীগের সাংগঠনিক অবকাঠামো গঠনে এডভোকেট আশরাফ উদ্দিন মন্তুু দক্ষতার সহিত কাজ করেছেন। আগামী সম্মেলনে সভাপতি পদে মন্তুু ভাইয়ের কোন বিকল্প নেই। শাহবাজপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি শাহ্ মোঃ কায়ুম ও শাহজাদাপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সভাপতি আকিল ভুইয়া বলেন, মন্তুু ভাইয়ের বিকল্প সরাইল যুবলীগে হবে না । দলকে সু-সংঘঠিত করতে অর্থ,বিত্ত সবদিকদিয়ে তিনি শক্তিশালী। বিগতদিনে মন্তুু ভাইয়ের নেতৃত্বে সরাইল যুবলীগ সবচেয়ে বেশি সু-সংঘঠিত হয়েছে।উল্লেখ্য, ২০২০ সনের ২১ শে জুন সরাইল উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ শের আলম মিয়া স্থানীয় রকেট মেম্বার হত্যার মামলা আসামী হওয়ায়, যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি বিশেষ ক্ষমতাবলে সরাইল উপজেলা শাখা যুবলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করেন।এর আগে দলীয় শৃঙ্গলা ভংঙ্গের দায়ে সরাইল উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস-চেয়ারম্যান মোঃ শের আলম মিয়াকে বহিস্কার করেন। পরে সরাইল উপজেলা যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বপান সেই‘ কমিটির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মোঃ জিয়াউল হক (জজ) মিয়া।

[gs-fb-comments]