ব্রাক্ষণবাড়িয়া হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতির বাড়ীতে হামলা বাড়ীঘর ভাংচুর

8 December, 2020 : 4:19 pm ৩১৪

ব্রাক্ষণবাড়িয়া।।

বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদের ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা দীলিপ কুমার নাগের দুটি ঘর গুড়িয়ে দিয়েছে একদল ভুমিদস্যগ ও সন্ত্রাসীরা। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার শাহবাজপুর গ্রামে তার পৈত্রিক জমিতে দুটি টিনের ঘর ভেকু দিয়ে গুড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।দিলীপ কুমার নাগ অভিযোগ করে বলেন, গত কয়েক বছর ধরেই স্থানীয় ইকরামুল আমিন বাবু তার বাড়িটি দখল করার পায়তারা করছিল।সরেজমিনে ঘটনাস্থলে গেলে দিলীপ কুমার নাগ জানান, আজ মঙ্গলবার ভোর ছয়টার দিকে ইকরামুল আমিন বাবু ২০/২৫ জনের একটি সন্ত্রাসীদল অস্ত্রসস্ত্রে সজ্জিত হয়ে একটি ভেকু দিয়ে দুটি টিনের ঘর গুড়িয়ে দেয়। এ সময় তাকে তার গেটে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে রাখে বলে অভিযোগ করেন তিনি। ঘটনার খবর পেয়ে সরাইল থানা থেকে একদল পুলিশ এলে পালিয়ে যায় ইকরামুল আমিন বাবু।ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যাওয়া সরাইল থানার উপ-পরিদর্শক জাহাঙ্গির আলম জানান, দুটি ঘর একবারে গুড়িয়ে দিয়েছে। এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।শাহবাজপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রাজিব আহমেদ রাজ্জি এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে এ ঘটনার দৃষ্টান্ত মুলক শাস্থি দাবি করেছেন।এদিকে মঙ্গলবার বিকেলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদের ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শাখা।এতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নির্যাতিত ও হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদের ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শাখার সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা দিলীপ কুমার নাগ।এ সময় সংগঠনের সাধারন সম্পাদক প্রদ্যুৎ নাগসহ জেলার নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।লিখিত বক্তব্যে দীলিপ কুমার নাগ অভিযোগ করে বলেন, ‘আমার পৈত্রিক ভিটাসহ অন্যান্য জায়গা দখল করার পায়তারায় লিপ্ত রয়েছে একটি ভুমিদস্যু ও এলাকার একটি মহল। বিগত দুই মাস আগে আমার বাড়িতে একই গ্রামের প্রাক্তন চেয়ারম্যান নান্না মিয়ার ছেলে ইকরামুল আমিন বাবু সহ ভুমি দস্যুরা আমাকে এবং আমার পরিবারের সদস্যদের প্রাণনাশের হুমকী দিয়ে আসছে। আজ ভোরে ইকরামুল আমিন বাবুর নেতৃত্বে ২০/৩০ জনের একটি সন্ত্রাসী দল ভেকু দিয়ে আমার ২০ হাত লম্বা এবং ৮ হাত প্রসস্থ দুটি ঘর সম্পুন্ন গুড়িয়ে দিয়েছে। এ অবস্থায় আমি নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছি।’এ ব্যাপারে সরাইল থানার ওসি নাজমুল আহমেদ জানান, ঘটনার পরপরই ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। ইকরামুল আমিন বাবুসহ জড়িতদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।এ ঘটনায় সরাইল মামলা হয়েছে

[gs-fb-comments]