নাসিরনগর গোয়ালনগরে যাত্রীবাহী মোটরবাইক চালকদের কাছে অসহায় এলাকাবাসী

13 January, 2021 : 1:01 pm ৫০

মোঃ আব্দুল হান্নান, গোয়াল নগর থেকে ফিরে।।ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার ভাটি অঞ্চল নামে খ্যাত গোয়ালনগর ইউনিয়ন। সেখানে বর্ষায় নৌকা আর হেমন্তে যাতায়াতের একমাত্র মাধ্যম মোটর বাইক । বিকল্প কোন যানবাহন না থাকায় বাধ্য হয়ে সাধারণ যাত্রীরা অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে মোটর সাইকেলে যাতায়াত করতে হচ্ছে বলে অভিযোগ যাত্রী সাধারণের। বর্তমান চেয়ারম্যান আজাহারুল হক চৌধুরী ও সাবেক চেয়ারম্যান ডাঃ মো: কিরণ মিয়ার সাথে কথা বলে জানা গেছে ভিটাডুবী ঘাট থেকে গোয়ালনগর বাজারের দুরুত্ব ৫ কিঃমিঃ। এর মাঝে ৩ কিঃমিঃ পাকা ও ২ কিঃমিঃ কাছা রাস্তা রয়েছে। মোটর সাইকেল চালকরা ৫ কিঃমিঃ রাস্তার জন্য জন প্রতি ভাড়া নিচ্ছে ১০০ শত টাকা। উক্ত রাস্তায় রয়েছে ৪০ থেকে ৪৫ টি মোটর বাইক। যাদের নেই কোন বৈধ কাগজ পত্র, চালকদের ও নেই ড্রাইভিং লাইসেন্স। সরজমিন এলাকায় গিয়ে ভূক্ত ভোগিদের সাথে কথা বলে জানা গেছে উক্ত রাস্তায় অটোরিক্সা, সি.এন.জি বা অন্য কোন যানবাহন নিয়ে কোন ড্রাইভার গেলে তাকে সেখানে গাড়ী চালাতে দেয়া হয়নি বরং পিটিয়ে তারিয়ে দেয়া হয়। বর্তমান ও সাবেক চেয়ারম্যান এবং ভূক্তভোগী এলাকাবাসির সাথে কথা বললে তারা জানান মোটর সাইকেল চালকরা প্রভাবশালী গোষ্টির লোক হওয়ায় তাদের সাথে ভয়ে কেউ কথা বলতে চায়নি। ভূক্তভোগী দুই দোকানদার সহ স্থানীয়রা জানায় গোয়ালনগরের মানুষের আয় সীমিত। একজন লোক একবার গোয়ালনগর থেকে নাসিরনগর যাতায়াত করলে ৫ থেকে ৬ শত টাকা খরচ হয়। এ নিয়ে কথা হয় মোটর বাইক সমিতির সভাপতি আশিকুর রহমান আশুর সাথে। তিনি বলেন মোটর বাইকের ভাড়া সাবেক চেয়ারম্যান ডাঃ কিরণ মিয়া সহ এলাকার সাহেব সরদাররা নির্ধারন করে দিয়েছে। তিনি দাবী করেন ভিটাডুবী থেকে গোয়ালনরগ বাজারের দুরুত্ব ৭ থেকে ৮ কিঃমি। কিন্তু ভাড়া নির্ধারনের বিষয়টি অস্বীকার করেন সাবেক চেয়ারম্যান ডাঃ কিরণ মিয়া। এ নিয়ে কথা হয় বর্তমান চেয়ারম্যান আজাহারুল হক চৌধুরীর সাথে। তিনি বলেন পুরুষ মানুষ না হয় মোটর বাইকে চলে যাতায়াত করতে পারে কিন্তু অন্য কোন যানবাহন না থাকায় মহিলা, যুবতী, বৃদ্ধ ও রোগীদের যাতায়াতের বেলায় বিরাট সমস্যা হচ্ছে। ভাড়ার বিষয়ে তিনি বলেন অতিরিক্ত ভাড়া নেয়া হচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে আমরা স্থানীয় ভাবে বসে সমাধানের চেষ্টা করেও সম্ভব হচ্ছে না। বিষয়টির দ্রুত ও সুষ্ট সমাধানের জন্য ভূক্তভোগী যাত্রীসাধারণ ও এলকাবাসী স্থানীয় সংসদ সদস্য, আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনি ও উপজেলা প্রসাশনের সুদৃষ্টি কামনা করছেন।

[gs-fb-comments]