সরকার নির্যাতনের মধ্যদিয়ে ছদ্মবেশে বাকশাল প্রতিষ্ঠিত করতে চলেছে বলে মন্তব্য করেছেন- মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

26 March, 2019 : 7:35 am ১৩৮

ঢাকা।।

বর্তমান সরকার নির্যাতনের মধ্যদিয়ে ছদ্মবেশে বাকশাল প্রতিষ্ঠিত করতে চলেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

সোমবার (২৫ মার্চ)  রাজধানীর রমনা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে বিএনপি আয়োজিত  ‘মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস’ উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ১৯৭১ সালে যে চেতনা ধারণ করে এদেশের মানুষ মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল, সেই মুক্তিযুদ্ধে চেতনা ও আর্দশ আজ  ভূলণ্ঠিত। স্বাধীনতা মানে কি? স্বাধীনতা মানে কি শুধু মাত্র একটি ভূখন্ডের স্বাধীনতা? স্বাধীনতা মানে কি শুধু মাত্র একটি পতাকা? না। স্বাধীনতা মানে হচ্ছে, মানুষের স্বাধীনতা। মানুষের বাক স্বাধীনতা। গণতন্ত্রের স্বাধীনতা। সেই স্বাধীনতাকে পুরোপুরিভাবে আওয়ামী লীগ ধ্বংস করেছে। যারা স্বাধীনতার পরেও (১৯৭৫) একদলীয় শাসন ব্যবস্থা বাকশাল প্রতিষ্ঠার মধ্যে দিয়ে দেশকে ধ্বংস করেছিল। আজও  আবার স্বাধীনতার ৪৮ বছর পরে একইভাবে নির্যাতন এবং নিপীড়নের মধ্যদিয়ে ছদ্মবেশে বাকশাল প্রতিষ্ঠিত করতে চলেছে।

তিনি বলেন, যারা (আওয়ামী লীগ) ক্ষমতায় আছে তারা বারবার বলেন, এমন উন্নয়ন হয়েছে যা অতীতে কখনও হয়নি। এ উন্নয়নের ভিতরটা কি? ভিতরটা ফাঁকা। এই উন্নয়ন শুধু মাত্র কথা ও দুর্নীতির উন্নয়ন। এরফলে শুধুমাত্র কয়েক জন মানুষের উন্নয়ন হয়েছে।

বিএনপি নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য করে মির্জা ফখরুল বলেন, বর্তমান সরকার দখলদার সরকার। তারা জোর করে ক্ষমতায় বসে আছে। সুতরাং এই সরকারকে সরানো ছাড়া জনগণের মুক্তি সম্ভব নয়। তাই স্বাধীনতা দিবসে শপথ গ্রহণ করতে হবে, আমরা জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আন্দোলনের মধ্যদিয়ে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করবো। আসুন, (বিএনপির অঙ্গ-সংগঠনগুলো) আমরা জনগণকে সঙ্গে নিয়ে দূর্বার আন্দোলনের মধ্যদিয়ে খালেদা জিয়া ও গণতন্ত্রকে মুক্ত করি।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, সত্যিকারভাবে বর্তমানে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব সম্পূর্ণভাবে বিপন্ন হয়েছে এবং গণতন্ত্র ধ্বংস হয়ে গেছে। বাংলাদেশ আজকে একটি ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত হতে চলেছে।

স্বাধীনতা দিবসের আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্য বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, আজকে যারা ক্ষমতায় তারা স্বাধীনতাকে বিকৃত করে, স্বাধীনতার ইতিহাসকে বিকৃত করে মানুষকে অন্য পথে নিতে যাচ্ছে। তারা স্বাধীনতার ঘোষণা নিয়ে ইতিহাস বিকৃত করছে। কারণ বাংলাদেশ ও বিশ্বের ৩৬টি প্রকাশিত বই প্রমাণ করে জিয়াউর রহমানই স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছেন।

সরকারকে উদ্দেশ্য করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার বলেন, আমরা মুক্তির কথা বলি। কিন্তু আজকে যা চলছে, সেগুলো স্বাধীনতার লক্ষণ নয়। তাই বলবো, এখনো সময় আছে, স্বাধীনতার মূল্যবোধগুলো স্থাপন করুন। আমরা সাহায্য করবো।

সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য ড. আবদুল মঈন খান বলেন, বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় জেলে রেখে আমরা ভালো থাকতে পারি না। তাই খালেদা জিয়াকে আমরা রাজপথের আন্দোলনের মাধ্যমে মুক্ত করবো এবং ৪র্থ বারের মতো এদেশের প্রধানমন্ত্রী করবো।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের  সভাপতিত্বে সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুস সালাম, ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, শামসুজ্জামান দুদু, এজেডএম জাহিদ হোসেন, নিতাই রায় চৌধুরী, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

[gs-fb-comments]
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com