বুধবার বেলা আড়াইটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলায় দুই হলের শিক্ষার্থীদের মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় দুই হলের ছাত্রলীগ কর্মী ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা  নিয়ে মাঠে নামে। একই সঙ্গে একপক্ষ অপর পক্ষকে ধাওয়া দেয়। কিছুক্ষণ ধরে চলে তাদের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া। এ সময় দুপক্ষের মধ্যে অন্তত ১৫ রাউন্ড গুলিবিনিময় হয়। তবে কেউ গুলিবিদ্ধ হওয়ার খবর পাওয়া যায়। jnu-varsity প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয়রা জানান, মিষ্টি খাওয়া নিয়ে দুই হলের ছাত্রলীগ কর্মীদের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে হল দুটির ছাত্রলীগ কর্মী ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলায় একত্র হলে সংঘর্ষ শুরু হয়। বিকেল ৩টার দিকে ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। এতে পরিস্থিতি কিছুটা শান্ত হয়। তবে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত দুই হলের শিক্ষার্থীদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। যেকোনো সময় আবারও সংঘর্ষে জড়াতে পারে তারা। jnu-varsity-3 এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর আ স ম ফিরোজ-উল হাসান বলেন, শিক্ষার্থীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়েছে। এতে কয়েকজন আহত হয়েছে। তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছি আমরা। আশুলিয়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) মো. জাবেদ মাসুদ বলেন, প্রক্টরের কাছ থেকে খবর পাওয়ার পরই আমরা ঘটনাস্থলে যাই। পরে দুই পক্ষের উত্তপ্ত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেছি। পরবর্তীতে শিক্ষার্থীরা নিজেরা বসে তাদের সমস্যা সমাধান করবে বলে জানিয়েছে"/>

পিস্তল রামদা ও দেশীয় অস্ত্রনিয়ে মাঠে এরা কারা

3 July, 2019 : 2:10 pm ২১৪

ঢাকা।।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) মওলানা ভাসানী হল ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের শিক্ষার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছেন।

jnu-varsity-1

বুধবার বেলা আড়াইটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলায় দুই হলের শিক্ষার্থীদের মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় দুই হলের ছাত্রলীগ কর্মী ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা  নিয়ে মাঠে নামে। একই সঙ্গে একপক্ষ অপর পক্ষকে ধাওয়া দেয়। কিছুক্ষণ ধরে চলে তাদের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া। এ সময় দুপক্ষের মধ্যে অন্তত ১৫ রাউন্ড গুলিবিনিময় হয়। তবে কেউ গুলিবিদ্ধ হওয়ার খবর পাওয়া যায়।

jnu-varsity

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয়রা জানান, মিষ্টি খাওয়া নিয়ে দুই হলের ছাত্রলীগ কর্মীদের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে হল দুটির ছাত্রলীগ কর্মী ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলায় একত্র হলে সংঘর্ষ শুরু হয়। বিকেল ৩টার দিকে ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। এতে পরিস্থিতি কিছুটা শান্ত হয়। তবে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত দুই হলের শিক্ষার্থীদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। যেকোনো সময় আবারও সংঘর্ষে জড়াতে পারে তারা।

jnu-varsity-3

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর আ স ম ফিরোজ-উল হাসান বলেন, শিক্ষার্থীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়েছে। এতে কয়েকজন আহত হয়েছে। তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছি আমরা।

আশুলিয়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) মো. জাবেদ মাসুদ বলেন, প্রক্টরের কাছ থেকে খবর পাওয়ার পরই আমরা ঘটনাস্থলে যাই। পরে দুই পক্ষের উত্তপ্ত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেছি। পরবর্তীতে শিক্ষার্থীরা নিজেরা বসে তাদের সমস্যা সমাধান করবে বলে জানিয়েছে

[gs-fb-comments]
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com