এ সময় গার্ড অব অনার ও এক মিনিট নিরবতার মাধ্যমে ভাষা শহীদদের স্মরণ করা হয়। পরে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল এবং সামাজিক সংগঠনের জন্য শহীদ মিনার উন্মুক্ত করে দেয়া হয়। এরপর আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, সেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগ, ব্রাক্ষনবাড়িয়া রিপোর্টার্স ক্লাব, মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ, প্রেস ক্লাব,জেলা বিএনপি সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পন করেন। এছাড়া দিবসটি উপলক্ষে নানা কর্মসূচী পালিত হয়। শ্রদ্ধা নিবেদনকালে শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক ওসমান গণি সজিব জানান, রাষ্ট্রের সর্বক্ষেত্রে বাংলা ভাষার প্রচলন এখনো সঠিকভাবে হয়নি। এটি যেন বাস্তবায়ন হয় এর দাবি জানান তিনি। এমপি র.আ.ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী বলেন, সবক্ষেত্রে বাংলা ভাষা প্রচলনের দাবি যৌক্তিক। এরমধ্যে উচ্চ আদালতে রায়ের ক্ষেত্রে বাংলার ব্যবহার শুরু হয়েছে। তাছাড়া পুরো দেশেই বাংলার প্রচলন রয়েছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর ফাহিমা খাতুন বলেন, আজকের দিনে ১৯৫২ সালের ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাচ্ছি। বাংলার প্রচলন সর্বক্ষেত্রে হলে ৫২’র ভাষা শহীদের স্বপ্ন বাস্তবায়ন হবে। এটি প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে বাস্তবায়নের কাজ চলছে।"/>

ব্রাক্ষনবাড়িয়ায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত

21 February, 2020 : 10:05 am ১৮৩

ব্রাক্ষনবাড়িয়া।।

ব্রাহ্মনবাড়িয়ায় বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালোবাসার মধ্য দিয়ে পালন করা হয়েছে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস । একুশের প্রথম প্রহরে রাত ১২টা ১ মিনিটে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজস্থ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ (সদর-বিজয়নগর) আসনের এমপি র.আ.ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী। পরে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খাঁন। জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে পুলিশ সুপার মুহাম্মদ আনিসুর রহমান, পৌরসভার পক্ষে পৌর মেয়র নায়ার কবীর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষে ট্রেজারার প্রফেসর ফাহিমা খাতুন, সদর উপজেলার পক্ষে ইউএনও পঙ্কজ বড়ুয়া ও জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে দলের সাধারণ সস্পাদক আল-মামুন সরকার শহীদ বেদীতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে ভাষা শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

এ সময় গার্ড অব অনার ও এক মিনিট নিরবতার মাধ্যমে ভাষা শহীদদের স্মরণ করা হয়। পরে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল এবং সামাজিক সংগঠনের জন্য শহীদ মিনার উন্মুক্ত করে দেয়া হয়। এরপর আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, সেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগ, ব্রাক্ষনবাড়িয়া রিপোর্টার্স ক্লাব, মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ, প্রেস ক্লাব,জেলা বিএনপি সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পন করেন। এছাড়া দিবসটি উপলক্ষে নানা কর্মসূচী পালিত হয়। শ্রদ্ধা নিবেদনকালে শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক ওসমান গণি সজিব জানান, রাষ্ট্রের সর্বক্ষেত্রে বাংলা ভাষার প্রচলন এখনো সঠিকভাবে হয়নি। এটি যেন বাস্তবায়ন হয় এর দাবি জানান তিনি। এমপি র.আ.ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী বলেন, সবক্ষেত্রে বাংলা ভাষা প্রচলনের দাবি যৌক্তিক। এরমধ্যে উচ্চ আদালতে রায়ের ক্ষেত্রে বাংলার ব্যবহার শুরু হয়েছে। তাছাড়া পুরো দেশেই বাংলার প্রচলন রয়েছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর ফাহিমা খাতুন বলেন, আজকের দিনে ১৯৫২ সালের ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাচ্ছি। বাংলার প্রচলন সর্বক্ষেত্রে হলে ৫২’র ভাষা শহীদের স্বপ্ন বাস্তবায়ন হবে। এটি প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে বাস্তবায়নের কাজ চলছে।

[gs-fb-comments]