পৌষ সংক্লান্তির নিয়ে কিছু কথা

15 January, 2021 : 11:21 am ২০৭

হৃদীমা চৌধূরী।।

পুণ্য মকরসংক্রান্তি। সূর্যের উত্তরায়ণ শুরু

#পিতামহ_ভীষ্ম
কুরুক্ষেত্রের ময়দানে পিতামহ ভীষ্মের অফুরন্ত বীরত্বে শঙ্কিত হয়ে পড়ে পান্ডবেরা। তাই, রাতে কৌরব শিবিরে প্রবেশ করে স্বয়ং ভীষ্মদেবের কাছে গিয়েই তাকে পরাজিত করার উপায় জানতে চায়। বিশ্বাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে সম্ভবত আত্মগ্লানিতে ভুগছিলেন ভীষ্ম। বলে দিলেন তাকে পরাজিত করার উপায়। পরের দিন পান্ডবপক্ষের শিখণ্ডিকে পাঠানো হলো ভীষ্মের সামনে। ভীষ্ম জানতেন, শিখণ্ডি পুরুষ নন। তাই বীরধর্ম মোতাবেক তার দিকে অস্ত্র ওঠালেন না।

সে সুযোগে অজস্র তীর এসে তাঁকে বিদ্ধ করলো। শেষমেশ অর্জুনের বাণে রথ থেকে পড়ে গেলেন তিনি। তীরগুলো এমনভাবে বিদ্ধ হয়েছিলো যে শরীরটা ভূমিতে না, তীরের উপর ভর করে শূন্যে একরকম ভাসমান ছিলো। মাথা ঝুলে পড়ছিলো দেখে অর্জুন আরো তিনটি শর নিক্ষেপ করে শরবালিশ করে দেন। ভূমিতে শরাঘাত করে তৃষ্ণার্ত ভীষ্মের জন্য বের করে দিলেন অমিয় জলধারা।

পিতা শান্তনুর থেকে বর পাওয়ার পর ভীষ্মের ইচ্ছা ছিল উত্তরায়ণে মৃত্যুবরণ করার। অর্থাৎ উত্তরায়ণ আসার আগে পর্যন্ত তাঁর মৃত্যু হবে না। এই জন্যই শরশয্যায় দীর্ঘ আটান্ন দিন কাটাতে হয়েছে তাঁকে । মহাভারতের ভীষ্মপর্বে তিনি রথ থেকে পড়ে গিয়ে অস্ত্র ত্যাগ করলেও মৃত্যু হয়েছে তেরোতম- অর্থাৎ অনুশাসন পর্বে। সমগ্র মহাভারতে ভীষ্মপর্বই সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ। এই পর্বেই উল্লিখিত হয়েছে ভগবান শ্রীকৃষ্ণ কর্তৃক অর্জুনের প্রতি উপদেশ গীতা বা শ্রীমদভগবদগীতা। চারবেদের নির্যাস এবং নিষ্কাম কর্মবাদের অমরগ্রন্থ; যা বিশ্বের সর্বাধিক পঠিত গ্রন্থগুলোর একটি হিসাবে স্বীকৃত।

কুরুক্ষেত্র যুদ্ধের পর যুধিষ্ঠির রাজক্ষমতা গ্রহণ করেন। কৃষ্ণ ও অন্যান্য ঋষি-মহর্ষিদের পরামর্শে পিতামহ ভীষ্মদেবের কাছে আশীর্বাদের জন্য গেলেন তিনি। তখন মাঘমাসের শুক্লপক্ষ সমাগত। সূর্যের উত্তরায়ণের সময়। ভীষ্মের স্বর্গারোহণের সময় টের পেয়ে ছুটে এলেন শ্রীকৃষ্ণ, ধৃতরাষ্ট্র, বিদুর এবং সাত্যকি। চারদিকে ঘিরে রেখেছিলেন ব্যস, নারদ এবং অন্যান্য মুনি-ঋষি।

#ভীষ্মের_উপদেশ
ভীষ্মদেব চোখ খুলেই চারপাশে আত্মীয় স্বজনদের সবাইকে দেখতে পেলেন। ধর্মরাজ যুধিষ্ঠিরের হাত ধরে তার আচরণে তুষ্টি প্রকাশ করলেন। সৃষ্টিতত্ত্ব, ব্যক্তি, সমাজ, রাষ্ট্র এবং অন্যান্য বিষয় নিয়ে দিলেন নানা দিক নির্দেশনা। কৌরব ভাইগণের পিতা ধৃতরাষ্ট্রকেও উদ্দেশ্য করে উপদেশ দিলেন। “

সূক্ষ্ম দেবশাস্ত্র ও ধর্ম তোমার অবিদিত না। সুতরাং শোক পরিত্যাগ করা অবশ্যই কর্তব্য। ধর্মানুসারে পাণ্ডবগণ তোমার পুত্রের মত। ধর্মপরায়ণ হয়ে পাণ্ডবগণকে প্রতিপালন করো। যুধিষ্ঠির সর্বদা তোমার আজ্ঞানুবর্তী হয়ে থাকবে। তোমার পুত্ররা লোভী, ঈর্ষাকাতর ও দুরাত্মা ছিল। তাদের জন্য দুঃখ করো না।”

কৃষ্ণকে লক্ষ্য করে বললেন, “আমার দেহত্যাগের সময় সামনে উপস্থিত। আমার যেন স্বর্গপ্রাপ্তি ঘটে।” ক্লান্ত চোখে তাকালেন সকলের দিকেই। বললেন,

“তোমরা অনুমতি দাও আমি দেহত্যাগ করি। তোমাদের বুদ্ধি যেন কখনো সত্যকে পরিত্যাগ না করে। সত্যের তুল্য আর কোন শক্তি নেই।”

তারপর ভীষ্মদেব চুপ হয়ে গেলেন। শরগুলো একে একে শরীর থেকে খসে পড়তে লাগলো। একসময় শরীরে একটা ক্ষতের দাগও রইলো না। অবশেষে তার পুণ্যাত্মা স্বর্গের অভিমুখে যাত্রা করলো। দেবতাগণ পুষ্পবৃষ্টি ও দুন্দুভিবাদ্যের নির্দেশনা দিলেন। কাশীরাম দাসের বর্ণনামতে,

“সাক্ষাতে পদারবিন্দ দেখিয়া নয়নে,
শরীর ত্যজেন ভীষ্ম দেখে দেবগনে;
জয় জয় শব্দ হৈল ইন্দ্রের নগরে
পুষ্পবৃষ্টি কৈল দেব ভীষ্মের উপরে।
দিব্য রথ পাঠাইয়া দিল সুরপতি
পবনের গতি রথ মাতলি সারথি;
রথেতে তুলিয়া স্বর্গে করিল গমন,
বন্ধুগণ সহ গিয়া হইল মিলন।

পিতামহ ভীষ্মদেবের জন্ম
হস্তিনাপুরের রাজা শান্তনু একদিন ছদ্মবেশী গঙ্গাদেবীর প্রেমে পড়ে তাকে বিবাহের প্রস্তাব দিলে গঙ্গাদেবী এই শর্ত দেন যে তার কোনো কাজে রাজার নিষেধ থাকবে না। সেই শর্তে রাজি হয়ে বিবাহের পর রাজা দেখেন যে এক একটি পুত্র জন্ম নিলে তার স্ত্রী তাদের গঙ্গা নদীতে ভাসিয়ে আসেন। পর পর সাত বার এই কষ্ট সহ্য করার পর অষ্টম বার আর থাকতে না পেরে প্রতিবাদ করলেন রাজা। তখন গঙ্গাদেবী নিজের পরিচয় দিয়ে শর্তানুযায়ী বিলীন হয়ে যান। পুত্র বড় হলে ফেরত দেবেন বলে প্রতিজ্ঞা করে সাথে পুত্রকেও নিয়ে যান।
এর পিছনের ঘটনাক্রম অনুযায়ী একদিন অষ্টবসুরা আট জন মিলে বশিষ্ঠ মুনির আশ্রমে সস্ত্রীক আতিথেয়তা গ্রহণ করতে গেছিলেন। এঁদের স্ত্রীদের একজন মুনির গাভী নন্দিনী-র লোভে পড়লে তিনি তার স্বামী প্রভাসকে গাভীটি চুরি করার অনুরোধ করেন। প্রভাস বাকিদের সাহায্য নিয়ে গাভীটি চুরি করে স্ত্রীকে উপহার দিলেন। ক্রমে বশিষ্ঠ মুনি ঘটনাটা জানতে পেরে সবাইকে মর্ত্যে জন্মগ্রহণের অভিশাপ দিলেন। কিন্তু অস্টবসুদের মিনতিতে প্রভাস ছাড়া সকলকেই কয়েক মুহুর্তের জন্য মানব জন্ম গ্রহণ করতে হবে এবং প্রভাস মর্ত্যে বিখ্যাত হবে বলে কিছুটা শাস্তি লাঘব হল। সেই অনুযায়ী দেবব্রত একমাত্র বসু যিনি মর্ত্যে মানব জীবন যাপন করেছিলেন।

বাল্য জীবন সম্পাদনা

মায়ের সাথে থাকাকালীন ভীষ্ম দেবগুরু বৃহস্পতির কাছে রাষ্ট্রবিজ্ঞান, বশিষ্ঠ মুনির কাছে বেদ ও বেদাঙ্গ এবং পরশুরাম মুনির কাছে ধনুর্বিদ্যা শিখে একজন আদর্শ রাষ্ট্রনায়ক হয়ে ওঠেন। এমনকি তিনি গুরু পরশুরামের বিরুদ্ধেও বিজেতা হন। সে যুদ্ধ ২৩ দিন ব্যাপী চলেছিল।

ভীষ্মের ভীষণ প্রতিজ্ঞা সম্পাদনা

ভীষণ প্রতিজ্ঞা গ্রহণ এবং তা সর্বাত্মকভাবে পালন করার জন্য রাজকুমার দেবব্রত ভীষ্ম নামে ভূষিত হন। রাজা শান্তনু ধীবর (জেলে) রাজকন্যা সত্যবতীর প্রেমে পড়ে তাকে বিবাহের প্রস্তাব দিলেন। ধীবর রাজ বলেন যে যেহেতু দেবব্রত শান্তনুর প্রথম পুত্র তাই সত্যবতীর ছেলের কোনদিন রাজা হওয়ার সুযোগ আসবে না। সুতরাং তিনি রাজা শান্তনুর এই প্রস্তাব প্রত্যাখান করেন। তখন রাজকুমার দেবব্রত প্রতিজ্ঞা করলেন যে তিনি কোনদিন রাজা হবেন না। দূরদর্শী ধীবর রাজ তার পর বলেন, যদি দেবব্রতর উত্তরসূরিরা রাজসিংহাসন দাবি করে তাহলেও এ বিয়ে সম্ভব নয়। তখন দেবব্রত আরো প্রতিজ্ঞা করলেন যে তিনি কোনদিন বিয়েই করবেন না । এই ভীষণ প্রতিজ্ঞার জন্য তার নাম হলো ভীষ্ম। ধীবর রাজ এই দুই শর্তে রাজি হয়ে রাজা শান্তনুর হাতে কন্যাদান করেন। রাজা শান্তনু খুশি হয়ে ভীষ্মকে স্বেচ্ছামৃত্যুর বর দিলেন। এই সময় ভীষ্মর এই প্রতিজ্ঞার আসল রহস্য নিয়ে স্বর্গ এবং মর্ত্যলোকে নানা রটনা রটতে লাগলো। অনেকে বলতে শুরু করলেন যে রাজসিংহাসনের আসল উত্তরাধিকারকে সরানোর ক্ষমতা রাজার থাকেনা বলে রাজা শান্তনু দেবব্রত কে দিয়ে প্রতিজ্ঞা করিয়ে নিয়েছেন। তখন ভীষ্ম নিজে সমস্ত ব্যাপার খুলে বলেন এবং একান্ত নিজের ইচ্ছা অনুযায়ী প্রতিজ্ঞা করেছেন বলে জানালেন। কিন্তু আগামী রাজকুমার সিংহাসনের অযোগ্য হলে কি হবে বলে প্রশ্ন তোলেন কুলগুরু। তখন ভীষ্ম আবার প্রতিজ্ঞা করলেন যে, যেই রাজা হোক না কেন, তিনি সবসময় রাজার প্রধান উপদেষ্টা হিসাবে কাজ করবেন এবং রাজা শান্তনুর বংশের কোনো অপমান হতে দেবেন না।

ব্যক্তিত্ব সম্পাদনা

কখনো সিংহাসনে আসীন না হলেও একজন তৎকালীন সম্রাটের যা যা গুন থাকা আবশ্যক ছিল সবই পিতামহ ভীষ্মের মধ্যে বিদ্যমান ছিল। তিনি একাধারে যেমন ছিলেন আদর্শ ক্ষত্রিয়, অন্যদিকে ছিলেন একজন শৃঙ্খলাপরায়ন তাপস। আদর্শ ক্ষত্রিয় হিসাবে তিনি কখনো ওহেতুক আবেগ অথবা রাগ প্রকাশ করেননি। তিনি ছিলেন সত্য ও কর্তব্যের প্রতিভূ।

এইরকম ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন মানুষ হয়েও দুর্ভাগ্যজনকভাবে তার জীবন ছিল একাকিত্ব, হতাশা আর দুর্দশায় ভরা। এবং এইভাবেই বশিষ্ঠ মুনির অভিশাপ ফলেছিল। দুর্ভোগ সহিত মানবজীবনের অভিশাপ অনুযায়ী তার মৃত্যু অব্দি ছিল যথেষ্ট যন্ত্রনাদায়ক। এইরকম দুর্দশাময় জীবন হওয়া সত্বেও তিনি কোনদিন সত্য, দায়িত্ব ও কর্তব্যের সাথে আপস করেননি এবং কাছের মানুষদের ভালবাসতে ভোলেননি।

দক্ষতা, প্রতিভা, এবং সাফল্য সম্পাদনা

শরশয্যায় ভীষ্ম
বিদ্যাশিক্ষার বিচারে যুদ্ধক্ষেত্রে তিনি যেমন একজন মহারথী ছিলেন তেমনি সাথে সাথে তিনি ছিলেন একজন শাস্ত্রজ্ঞ পন্ডিত এবং দক্ষ রাজনীতিবিদ। কৌরব এবং পান্ডবদের মধ্যে যুদ্ধ বন্ধ করার জন্য তিনি সর্বান্তকরণে চেষ্টা করেছিলেন। ধর্মযুদ্ধে কৌরব পক্ষের প্রধান সেনাপতি থাকাকালীন দুই শিবিরের সংঘাত কম রাখার চেষ্টা করেছিলেন। এমনকি শরশয্যায় মৃত্যুমুখেও তিনি উভয়পক্ষকে যুদ্ধরদের উপদেশ দিয়েছিলেন। যুদ্ধ অন্তে শরশয্যায় থাকাকালীন যুধিষ্ঠিরকে রাষ্ট্রনায়কত্ব এবং রাজচিত কার্য্য সম্পর্কে গভীর তাৎপর্যপূর্ণ তত্বোপদেশ দিয়েছিলেন।

[gs-fb-comments]
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com